Hot!

প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ খেলে জিততে চান চান্দিমাল

এক ম্যাচে চরম বাজেভাবে হার, ফিরতি ম্যাচে আবার দুর্দান্ত জয়। ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দুই ধরনের অভিজ্ঞতাই হয়েছে শ্রীলঙ্কার। আর এতে করে লঙ্কান অধিনায়ক বুঝে গেছেন কিভাবে খেলতে হবে প্রতিপক্ষ বাংলাদেশের বিপক্ষে। আজ ফাইনালের আগে সেভাবেই পরিকল্পনা করেছেন তারা। শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমাল দাবি করলেন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একটি দল হিসেবে ফাইনালে খেলার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে শ্রীলঙ্কা। আর এর মাধ্যমেই ফলাফল নিজেদের পক্ষে নিয়ে আসা সম্ভব বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। কিভাবে সবসময় ভাল খেলা যায় সেটাও বুঝে গেছেন চান্দিমাল এবং এটিকে দলের মধ্যে আসা সবচেয়ে বড় পরিবর্তন হিসেবে দেখছেন তিনি। ত্রিদেশীয় সিরিজে ফাইনালের আগের ম্যাচটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিল শ্রীলঙ্কার জন্য। ফাইনালে ওঠার জন্য ম্যাচটিতে জিততেই হতো। অথচ দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচটিতে নামার আগেরদিন উইকেট দেখতে গিয়ে ধাঁধায় পড়ে গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা দল। কারণ ম্যাচের জন্য একই সঙ্গে তিনটি পিচে কাজ চলছিল। কোন উইকেটে খেলা হবে সেটা বুঝতে না পেরেই সংশয়ে পড়ে গিয়েছিলেন চান্দিমাল। ফাইনালের আগে আরেকবার বিস্ময় তৈরি হয়েছে তার মনে। কারণ আজ ফাইনাল- শুক্রবার অনুশীলনের আগে উইকেট দেখতে গিয়ে শুধু এদিন একটি মাত্র পিচে কাজ চলছে সেটা দেখেছেন। নিশ্চিত হয়েছেন সেখানেই হবে ফাইনাল ম্যাচ। কিন্তু তবু বিস্ময় তার কণ্ঠে, ‘আজও (শুক্রবার) আমি, কোচ ও ম্যানেজার পিচ দেখতে গিয়েছিলাম। এখন তারা শুধু একটা পিচই প্রস্তুত করছে। আবার আমার একটা প্রশ্ন আছে- কেন তারা শুধু একটাই প্রস্তুত করছে? কেউ পিচকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। তারা আমাদের যেমন পিচ দেবে সেই অনুসারে সেখানেই খেলব। আমাদের শুধু প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হতে হবে। সেটা হলেই আমরা ভাল ফলাফল পেতে পারি। আগামীকালের (আজ) জন্য আমাদের মধ্যে তেমন কিছুই আছে এবং আমরা যদি নেমে সেটার প্রয়োগ ঘটাতে পারি সেক্ষেত্রে আমি নিশ্চিত আমরা ভাল ফলাফল বের করতে পারব।’ ফাইনালের প্রতিপক্ষ বাংলাদেশের বিপক্ষেই ম্যাচ জিতেছে শ্রীলঙ্কা। সে জয়ে এখন বেশ আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছে তারা। এ বিষয়ে চান্দিমাল বলেন, ‘দলের জন্য এটা আসলেই খুব ভাল জয় ছিল। বিশেষ করে ফাইনালের আগে। আমরা ফাইনাল নিয়ে চিন্তা করছিলাম না। আমাদের মৌলিক কাজগুলো করে যেতে হবে এবং পরিকল্পনার সঙ্গে লেগে থাকতে হবে। আমরা যদি সেটার প্রয়োগ ঘটাতে পারি খেলায় থাকতে পারব।’ পরিকল্পনার প্রয়োগটা গত ম্যাচে ঠিকভাবে হয়েছে। গত বছরটা ওয়ানডে ক্রিকেটে দুঃসময় কেটেছে লঙ্কানদের। তবে নতুন কোচ চান্দিকা হাতুরাসিংহের অধীনে এখন দলের সবার মধ্যে যে পরিবর্তন এসেছে সেসব নিয়ে চান্দিমাল বলেন, ‘আসলে গত দুই বছর দলের জন্য এবং ভক্তদের জন্য খুব কঠিন সময় ছিল। কিন্তু যখন আপনি ওয়ানডে ফরমেটের দিকে দেখবেন আমাদের কিছু ইনজুরি সমস্যা ছিল। মাঝে মাঝে আমরা সঠিক সমন্বয়টা নিয়ে খেলতে পারিনি। কিন্তু সেসব কোন অজুহাত হতে পারে না। যেখানেই আপনি খেলেন না কেন ভাল পারফর্ম করার জন্য খেলোয়াড় থাকতে হবে। এখন নতুন কোচের অধীনে আমরা কিছু নতুন কায়দা-কৌশল পেয়েছি। তার ওপর আমাদের যথেষ্ট আস্থা আছে এবং আমরা কিছু আত্মবিশ্বাসও পেয়েছি। আমরা ফল নিয়ে চিন্তা করছি না। যখনই আমরা নামব, কিভাবে ভাল খেলা যায় আমরা সবসময় সেটা নিয়েই ভাবছি। দলে আসা এটাই এখন সবচেয়ে বড় পরিবর্তন।’ বাংলাদেশের বিপক্ষে জেতার জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ক্রিকেট খেলাই মূল লক্ষ্য শ্রীলঙ্কার। সেটা শুধু ভাল কোচ কিংবা শুধু ভাল খেলোয়াড় দিয়ে হয় না। কোচ এবং খেলোয়াড়দের মধ্যে সামঞ্জস্যটা জরুরী। প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ নিয়ে তাই চান্দিমালের মন্তব্য, ‘তারা সত্যিকারের বেশকিছু ভাল খেলোয়াড় পেয়েছে যারা ৮/১০ বছরের বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছে। এখনও তারা ঘরের মাটিতে অনেক ভাল। কিন্তু আমাদের খেলার পরিকল্পনাসমূহের প্রয়োগ ঘটাতে হবে এবং তাহলেই আমরা খেলায় টিকে থাকতে পারব।’