Hot!

Other News

More news for your entertainment

‘পুরুষদের কষ্ট হবে’, কেন বললেন শ্রদ্ধা?

ইনস্টাগ্রাম থেকে সব ছবি, ভিডিও মুছে ফেললেন শ্রদ্ধা কাপুর। আচমকাই শ্রদ্ধার ওই কাণ্ডে অবাক হয়ে গেছেন প্রত্যেকে। পাশপাশি নিজের ইনস্টাগ্রাম একাউন্ট থেকে ছবি এবং ভিডিও মুছে দেওয়ার আগে শ্রদ্ধা লেখেন, ‘মর্দ কো দর্দ হোগা’। কিন্তু, কী কারণে শ্রদ্ধা ওই স্টেটাস দেন, সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।
বলিউডের একাংশের কথায়, শ্রদ্ধা কাপুরের একাউন্ট হ্যাক করা হয়েছে। না হলে, এইভাবে অভিনেত্রীর ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেল থেকে অভিনেত্রীর প্রোফাইল ছবি গায়েব হয়ে যেত না। তবে আগামী সিনেমা ‘স্ত্রী’-র প্রমোশনের জন্যই কি ‘মর্দ কো দর্দ হোগা’ স্টেটাস দিয়ে ইনস্টাগ্রাম থেকে গায়েব হয়ে গিয়েছেন শ্রদ্ধা। যদিও এ বিষয়ে মুখ খোলেননি বলিউড অভিনেত্রী। প্রসঙ্গত, আগামী সিনেমা ‘স্ত্রী’-তে শ্রদ্ধাকে এক অন্যরকম ভূমিকায় অভিনয় করতে দেখা যাবে বলে খবর।
বর্তমানে শহিদ কাপুরের সঙ্গে ‘বাত্তি গুল মিটার চালু’-র শুটিংয়ে ব্যস্ত শ্রদ্ধা কাপুর। ওই সিনেমায় শ্রদ্ধা এবং শহিদের সঙ্গে অভিনয় করছেন অভিনেত্রী ইয়ামি গৌতমও। অন্যদিকে শোনা যাচ্ছে, ‘বাত্তি গুল মিটার চালু’-র পর শ্রদ্ধা কাপুরের সঙ্গে সুশান্ত সিং রাজপুতের সঙ্গে অভিনয় করার কথা।
কিন্তু, শ্রদ্ধা এবং সুশান্তের একসঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করার কথা শুনে নাকি রেগে যান কৃতি শ্যানন। বয়ফ্রেন্ড সুশান্তের সঙ্গে শ্রদ্ধা যাতে স্ক্রিন শেয়ার করতে না পরেন, তার জন্য নাকি চেষ্টা শুরু করেছেন কৃতি। শুধু তাই নয়, সুশান্তের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে নাকি কৃতির ঝামেলাও হয়েছে বলে জানা যায়।

‘দহন’ নয়, আসছে ‘বেপরোয়া’


'পোড়ামন ২' দিয়ে দর্শক হৃদয় জয় করেছেন সিয়াম-পূজা জুটি। তাদের পরবর্তী ছবি 'দহন' আগামী ঈদে মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও পিছিয়ে গেছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ। এর বদলে ঈদে দর্শক মাতাতে আসছে ববি-রোশান অভিনীত 'বেপরোয়া'।
'দহন' এর মুক্তি পিছিয়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে আবদুল আজিজ জানান, ছবিটিতে প্রচুর ভিএফএক্সের কাজ রয়েছে। ঈদের আগে ‘দহন’র শুটিং শেষ করতে পারলেও ভিএফএক্সের কাজ শেষ করা সম্ভব হবে না। শুধু ভিএফএক্স নয়, পোস্ট প্রডাকশনের আরও কাজ রয়েছে। সেগুলো করতেও সময় লাগবে। তাই ‘দহন’ সরিয়ে ‘বেপরোয়া’ মুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
'বেপরোয়া'র মুক্তি নিয়ে উচ্ছ্বসিত ছবির নায়ক রোশান, বড় বাজেট, ভালো নির্মাতা, দুর্দান্ত মেকিং, মারকাটারি অ্যাকশন, রোমান্স সবকিছুই আসছে এই ‘বেপরোয়া’ তে। আমি বিশ্বাস করি ঈদে খুব ভালো চলবে ‘বেপরোয়া’।
রাজা চন্দ পরিচালিত ‘বেপরোয়া’ ছবিতে রোশান-ববি ছাড়াও ছবিতে অভিনয় করছেন শহিদুল আলম সাচ্চু, কাজী হায়াৎ, কমল, রেবেকা, চিকন আলী প্রমুখ।

পাকিস্তানে নির্বাচনে ভোটগ্রহন শুরু

পাকিস্তানে নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। আজ সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত এ ভোটগ্রহণ চলবে। এবারই প্রথম ১০ ঘন্টাব্যাপী ভোটগ্রহণ চলবে। পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে ২৭২টি আসন এবং প্রাদেশিক পরিষদের ৫৭৭টি আসনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। 
পাকিস্তানের বিভিন্ন প্রান্তে ৮৫ হাজার বুথ বসানো হয়েছে। ১০ কোটি ৫০ লাখ বৈধ ভোটার মোট দুটি করে ভোট দেবেন। একটি জাতীয় পরিষদের জন্য অপরটি প্রাদেশিক পরিষদের জন্য।
পাকিস্তানের চারটি প্রদেশে মূল লড়াইটা হবে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ ও তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)-এর মধ্যে। তবে দুর্নীতির দায়ে জেলে থাকায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না নওয়াজ শরিফ। তার ভাই শাহবাজ শরিফ নির্বাচনে লড়াই করছেন। 
প্রায় দুই দশক আগে রাজনীতিতে প্রবেশ করেছেন সাবেক তারকা ক্রিকেটার ইমরান খান। কিন্তু আজকের নির্বাচনে পিটিআই প্রধান ইমরানের বিজয়ী হওয়ার বেশ সম্ভাবনা রয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, পাকিস্তানের শক্তিশালী সেনাবাহিনী নির্বাচনে ইমরানের জয়ের জন্য আগে থেকেই ছক কষে রেখেছে।

ফিফার সংক্ষিপ্ত তালিকায় নেই নেইমার


ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে ফিফা। যেখানে নাম নেই ব্রাজিলের সেরা ফরোয়ার্ড নেইমারের। বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা মঙ্গলবার 'দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার' এর জন্য অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ১০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করে।
ফিফা প্রকাশিত ১০ ফুটবলারদের তালিকাতে রোনাল্ডো, মেসি, এমবাপ্পে, মদ্রিচ, হ্যারি কেন, সালাহ থাকলেও নেই বর্তমান সময়ের অন্যতম প্রতিভাবান ফুটবলার নেইমারের। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে টানা তৃতীয় চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতে রাশিয়ায় বিশ্বকাপ মঞ্চে পা রাখেন রোনালদো। 
গ্রুপ ম্যাচ থেকেই অনবদ্য ফুটবল উপহার দিয়েছেন সিআর সেভেন। প্রথম ম্যাচে স্পেনের সঙ্গে ৩-৩ ড্রয়ে হ্যাটট্রিক করার পর মরক্কোর বিপক্ষে ১-০ ব্যবধানের জয়ে জয়সূচক গোলটিও করেন তিনি। তবে শেষ ষোলোয় উরুগুয়ের কাছে ২-১ গোলে হেরে ছিটকে যায় তার দল পর্তুগাল। রিয়াল মাদ্রিদে নয়টি ফুটবল মৌসুম কাটানোর পর বিশ্বকাপ থেকে ফিরেই জুভেন্টাসে নাম লিখিয়েছেন পর্তুগাল ফুটবলের রাজপুত্র।
সিআর সেভেন ছাডাও অবশ্যম্ভাবিভাবেই বার্সেলোনার এবং আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিও মেসি রয়েছেন এই তালিকায়। বার্সেলোনার জার্সিতে গত মৌসুমে লা লিগা ও কোপা দেল রে শিরোপা জয়ের পাশাপাশি লিগে ৩৪ গোল করেন এল এম-টেন। 
ইউরোপের লিগগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ গোলের জন্য গোল্ডেন সু জিতেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক। বিশ্বকাপটা অবশ্য মোটেও সুখকর ছিল না মেসির। টুর্নামেন্টে মাত্র একটি গোল করেন তিনি। শেষ ষোলোয় ফ্রান্সের কাছে হেরে ছিটকে যায় আর্জেন্টিনা।

মেসি রোনালদোর পর যে ফুটবলারের নাম নেওয়া হয়, ব্রাজিলের সেই কিংবদন্তি নেইমার চোটের কারণে অনেকদিন ফুটবল থেকে দূরে থেকেছে। স্বাভাবিকভাবে বিশ্বকাপের আসরেও অনবদ্য ফুটবল উপহার দিতে ব্যর্থ থাকেন নেইমার। সেই কারণেই ফিফার বর্ষ সেরা ফুটবলারদের দৌড়ে নেই নেইমার।

যৌনকর্মীর চরিত্রে বাজিমাত বলিউড নায়িকাদের


পারিপার্শ্বিকতার চাপে যেসব নারী পতিতাবৃত্তির মতো পেশা বেছে নেন ভদ্র সমাজের চোখে তারা অস্পৃশ্য। কিন্তু যুগে যুগে তাদের নিয়ে রচিত হয়েছে সাহিত্য, নির্মিত হয়েছে সিনেমা। বলিউডও তার বাইরে নয়। যৌনকর্মী চরিত্রে অভিনয় করে মন কেড়েছেন বলিউডের প্রথমসারির নায়িকারাই। বাস্তবসম্মতভাবে চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম হওয়ায় সম্মানিতও হয়েছেন তারা। এসব অভিনেত্রীদের তালিকায় আছেন: 
কারিনা কাপুর: চামেলি ও তালাশ ছবিতে কারিনার তুখোড় অভিনয় মন কেড়েছে দর্শকদের। চামেলি ছবিতে বাস্তবসম্মত অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রী হিসাবে ফিল্মফেয়ার সম্মান পান কারিনা।
রানি মুখার্জী: সঞ্জয় লীলা বানসালীর ‘সাওয়ারিয়া’ ও প্রদীপ সরকারের ‘লাগা চুনরি মে দাগ’ দুইটি ছবিতেই রানির অভিনয় প্রশংসিত হয়েছে সমালোচকদের কাছে। দ্বিতীয়টির জন্য সেরা অভিনেত্রীর ফিল্মফেয়ার সম্মান পান রানি।

শর্মিলা ঠাকুর: ‘অমর প্রেম’ ছবিতে রাজেশ খান্নার বিপরীতে শর্মিলা ঠাকুরের অভিনয় আজও ভোলেনি দর্শক।
শাবানা আজমি: শ্যাম বেনেগালের ‘মান্ডি’ ছবিতে রুক্মিনী বাই নামে এক যৌনকর্মীর চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। সাবলীল অভিনয়ে মেলে জাতীয় পুরস্কার।
টাবু: ‘চাঁদনি বার’ ছবিটি মু্ম্বাইয়ের অপরাধ জগতের উপর নির্মিত। ছবিতে মুমতাজ নামে এক যৌনকর্মীর চরিত্রে অভিনয়ের জন্য জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলেন টাবু।
কাল্কি কোয়েচলিন: ‘দেব ডি’ ছবিতে আধুনিক যুগের চন্দ্রমুখীর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন কাল্কি। পেয়েছিলেন ফিল্ম ফেয়ার সহ-অভিনেত্রীর পুরস্কার।
ঐশ্বরিয়া রাই: ‘উমরাও জান’ ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন ঐশ্বরিয়া রাই। বিপরীতে ছিলেন অভিষেক বচ্চন। ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে বেশি দিন না চললেও প্রশংসিত হন তিনি।
সুস্মিতা সেন: চিঙ্গারি ছবিতে যৌনকর্মীর ভূমিকায় অভিনয় করেন সুস্মিতা। ছবিটি একেবারেই সাড়া ফেলেনি বাণিজ্যিকভাবে। তবে প্রশংসিত হয় সুস্মিতা অভিনীত ‘বাসন্তী’ চরিত্রটি।
হুমা কোরেশি: ‘বদলাপুর’ ছবিতে যৌনকর্মীর ভূমিকায় অভিনয় করেন হুমা খুরেশি। ছবিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল হুমার চরিত্রটি।
প্রীতি জিনতা: ‘চোরি চোরি চুপকে চুপকে’ ছবিতে প্রীতি জিন্তা অভিনয় করেন এক যৌনকর্মীর ভূমিকায়। ছবিতে সালমান খানের সন্তানের ‘সারোগেট মাদার’ হিসেবে দেখা গিয়েছিল তাকে।

হ্যাকের শঙ্কায় ১৪০ কোটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট!


বিশ্বের প্রায় ১৪০ কোটি জিমেইল অ্যাকাউন্ট হ্যাকারদের হামলার শঙ্কায় রয়েছে বলে ব্যবহারকারীদের সতর্ক করেছেন হোমল্যান্ড সিকিউরিটির কর্মকর্তারা। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাটির তথ্য মতে, এপ্রিলে ‘কনফিডেনশিয়াল মোড’ সুবিধাযুক্ত হালনাগাদ সংস্করণ উন্মুক্ত করে জিমেইল। ‘কনফিডেনশিয়াল মোড’ ফিচারটি কাজে লাগিয়ে পাঠানো বার্তা প্রাপকের ইনবক্স থেকে নির্দিষ্ট সময় শেষে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মুছে যায়। তবে সব বার্তা নয়, ই-মেইল পাঠানোর আগে নির্দিষ্ট করা বার্তাগুলোই শুধু মুছে যাবে। আর এই ই-মেইলটি পড়ার জন্য প্রাপককে আলাদা লিংকে ক্লিক করতে হয়। আর এ লিংকে ক্লিক করার পদ্ধতি কাজে লাগিয়েই মূলত ভুয়া লিংক পাঠিয়ে সাইবার হামলা চালাতে পারে হ্যাকাররা। এ জন্য ভুয়া লিংক পাঠায় সাইবার অপরাধীরা। লিংকগুলোতে ক্লিক করলেই ভুয়া ওয়েবসাইটে প্রবেশের পাশাপাশি নিজেদের ব্যক্তিগত তথ্য ও অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড চুরির শঙ্কা থাকে।

আফ্রিকায় মোদির ঐতিহাসিক সফর, সঙ্গী গরু!


প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঐতিহাসিক আফ্রিকা সফর। আরও ঐতিহাসিক হয়ে উঠল 'গরু'-র সৌজন্যে! খোলসা করা যাক বিষয়টি। আফ্রিকার তিন দেশ সফরে বর্তমানে রুয়ান্ডায় মোদি। নানা কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক চুক্তির মাঝেই রুয়ান্ডার একটি গ্রামকে ২০০ গরু উপহার দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।
রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট পল কিগামের সরকারের একটি প্রকল্প রয়েছে। প্রকল্পটির নাম গিরিংকা। এই প্রকল্পের আওতায় অতিদরিদ্র পরিবারকে বিনামূল্যে গরু দিচ্ছে সরকার। সেই প্রকল্পের আওতাতেই নরেন্দ্র মোদি ২০০ গরু উপহার দিচ্ছেন। নরেন্দ্র মোদিই প্রথম ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী, যিনি রুয়ান্ডা সফরে গেলেন। 
ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, রুয়ান্ডা, উগান্ডা ও দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের মাধ্যমে আফ্রিকার দেশগুলোর সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক আরও মজবুত হবে। কারণ ভারতের পররাষ্ট্র নীতিতে আফ্রিকাকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।
মোদির এই সফরে রুয়ান্ডা এবং উগান্ডার সঙ্গে প্রতিরক্ষা ও কৃষিতে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা বাড়বে। এই দুই দেশ সফরের পরে প্রধানমন্ত্রী যাবেন দক্ষিণ আফ্রিকায় বিআরআইসিএস সম্মেলনে যোগ দিতে। এছাড়া রুয়ান্ডাতে ভারতীয় দূতাবাস খোলারও পরিকল্পনা চলছে। রুয়ান্ডায় ভারতীয় হাইকমিশনার বর্তমানে থাকেন উগান্ডার কাম্পালায়।

সুখের দিন শেষ হচ্ছে বিরাট-আনুশকার!


বিরুষ্কার সুখের দিন শেষ হতে চলেছে। আপাতত আনুশকা শর্মার সঙ্গে আর বিরাট কোহলির থাকা হবে না। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আসন্ন টেস্ট সিরিজে নো ওয়্যাগ (ওয়াইফ অ্যান্ড গার্লফ্রেন্ড) নিয়ম করতে চলেছে বিসিসিআই। 
মনে করা হচ্ছে পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম তিনটে টেস্টে ক্রিকেটাররা তাদের স্ত্রী বা বান্ধবীদের সঙ্গে থাকতে পারবেন না।
এই মুহূর্তে ব্রিটিশ তল্লাটে গ্রীষ্মকালীন লম্বা ক্রিকেটীয় সফরে ভারত। টি-২০ সিরিজে জয় দিয়ে শুরু করে ওয়ানডে হেরেছে কোহলি অ্যান্ড কোং। আগামী ১ অাগস্ট থেকে শুরু অ্যাসিড টেস্ট। পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে মুখোমুখি হবে দুই দল। তার আগে পরিবারের সঙ্গে লন্ডনে সাময়িক অবসর চুটিয়ে উপভোগ করেছেন ভারতীয় দলের সদস্যরা।
শিখর ধাওয়ান-কোহলিরা ইনস্টাগ্রামে প্রচুর ছবিও পোস্ট করেছেন একসঙ্গে। বাকিংহ্যাম প্যালেস ভ্রমণ থেকে একসঙ্গে মিল খাওয়া। আগামী মঙ্গলবার থেকে চেমসফোর্ডে কাউন্টি দল এসেক্সের বিরুদ্ধে চারদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে। বোর্ড চাইছে সে সময়ের মধ্যেই বিরাটরা তাদের পরিবারকে গুডবাই বলে দিক।
সম্প্রতি আনুশকাকে রাজকুমার হিরানির সঞ্জুতে বিশেষ চরিত্রে দেখা গেছে। এই মুহূর্তে আনুশকা, শাহরুখ খান ও ক্যাটরিনা কাইফের সঙ্গে 'জিরো’তে কাজ করছেন। অন্যদিকে বরুণ ধাওয়ানের সঙ্গে 'সুই ধাগা'তেও পাওয়া যাবে তাকে।

বাংলাদেশের তরুণরা জ্বলে উঠবে কি আজ


ফুটবল বিশ্বকাপে শিরোপাজয়ী ফ্রান্সের ফুটবলারদের গড় বয়স কতো জানেন?—২৫ বছর। সুপারস্টার এমবাপ্পের বয়স মাত্র ১৯। তারুণ্যনির্ভর দলটাই ফরাসিদের দ্বিতীয় শিরোপা এনে দিয়েছে। ফুটবল হোক কিংবা ক্রিকেট বা অন্য কোনো ইভেন্ট— তরুণরাই তো স্পোর্টসের প্রাণ।
এই কথাটা চলে না বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সঙ্গে। এখানে ‘বুড়ো’রাই দলের প্রাণ। তরুণরা যেন ক্লান্ত, পরিশ্রান্ত। শুধুমাত্র সিনিয়রদের কাঁদে ভর করেই এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট।
গায়ানায় প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশ জয় পেয়েছে ৫ সিনিয়র ক্রিকেটারের দুর্দান্ত দাপটে। এখানে তরুণ ক্রিকেটারদের ভূমিকা ছিল খুবই নগণ্য।
মাশরাফি বিন মর্তুজার বয়স ৩৪ বছর ২৭১ দিন— এখনো দলের সেরা পেসার তিনি। অথচ এই বয়সে একজন পেসার সাধারণ অবসরের চিন্তা করেন। কিন্তু সাত সাতবার অপারেশন করার পরও মাশরাফিই সেরা। এছাড়া বাকি চার সিনিয়র মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান এবং তামিম ইকবালও ৩০-এ পা দিয়েছেন বা তার চেয়ে বেশি বয়স। এই ৫ সিনিয়রই এখনো সব দায়িত্ব পালন করছেন। তাহলে দলে তরুণ ক্রিকেটারদের কাজটা কি? তারা কবে দায়িত্বশীল হবেন?
মাশরাফি যখন বোলিং করেন, রানআপের সময় খেয়াল করলেই দেখা যায় নড়াইল এক্সপ্রেস কতটা কষ্ট করে বোলিং করেন! প্রতিটি ডেলিভারি দেওয়ার আগে নি-ক্যাপ ঠিক করে নিচ্ছেন। ম্যাশের বোলিংয়ে আগের মতো গতি নেই। প্রথম ম্যাচে তার বোলিংয়ের গতি ছিল ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটারের মধ্যে। এমন গতিতে বোলিং করতে পারেন অনেক স্পিনারই। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি তো নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে এক ম্যাচে ১৩৪ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করে একটি ডেলিভারি দিয়েছিলেন। ১১৮ কিলোমিটার গতিতে বোলিংয়ের রেকর্ড আছে ভারতের সাবেক স্পিনার অনিল কুম্বলে। সেখানে কিনা মাশরাফি ১১১-১২ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করেও সফল।
টাইগার দলপতি বোলিং করেন ব্যাটসম্যানের দুর্বলতার প্রতি খেয়াল রেখে সঠিক লাইনলেন্থে। তরুণ পেসাররা কি মাশরাফিকে দেখেও কিছু শেখেন না? বাংলাদেশের তরুণ ব্যাটসম্যানদেরও একই অবস্থা। সিনিয়র ব্যাটসম্যানরা রান পেলে দলের স্কোর বড় হয়, না হলে নাই।
কেন বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেটাররা সফল হচ্ছেন, আর তরুণরা ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ? অবশ্য তামিমের কথাতেই অনেকটা পরিষ্কার হয়ে যায়, ‘এই এত দিন পরও আমাকে সব সময়ই কিছু না কিছু শিখতে হচ্ছে। ক্রিকেটে আপনি নতুন নতুন পথ না খুঁজলে এক জায়গাতেই থেমে থাকবেন। মাশরাফি ভাইয়ের কথাই ধরেন কিংবা সাকিব-মুশফিক-রিয়াদ ভাই (মাহমুদুল্লাহ) আমরা প্রত্যেকেই পরের স্টেজে যাওয়ার জন্য নতুন নতুন কিছু করার চেষ্টা করছি।’
সিনিয়ররা নিজেদের শাণিত করার জন্য প্রতিনিয়ত কঠোর অনুশীলন করছেন, নতুন কিছু শিখছেন— তরুণরা কি তবে স্রোতে গা ভাসিয়ে দিয়ে চলেছেন? তরুণরা সতর্ক না হলে জয় পাওয়া যে অনেক কঠিন হয়ে যাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।
প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ শেষ জুটিকে আউট করা যাচ্ছিল না, শেষ পর্যন্ত যায়নি। অথচ ওই সময় মোসাদ্দেক ক্যাচ মিস করেছেন, সাব্বির ফিল্ডিং মিস করেছেন।
দিন দিন যেন বাংলাদেশ দলটা যেন অনেক বেশি সিনিয়রদের ওপর নির্ভরশীল হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এটা তো ঠিক যে, প্রতি ম্যাচেই সিনিয়ররা ভালো করবেন তা আশা করাও ঠিক নয়। সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হলে সিনিয়রদের পাশাপাশি তরুণদের সচেতনতা জরুরি।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে আজ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ। জিতলেই নিশ্চিত হয়ে যাবে সিরিজ। এমন ম্যাচে কি দলের তরুণরা পারবেন সিনিয়রদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভালো পারফর্ম করতে!
আজ গায়ানার প্রোভিডেন্স স্টেডিয়ামে মাশরাফি-সাকিব-তামিমদের সঙ্গে যদি মিরাজ-মোসাদ্দেক-সাব্বিররাও দাপট দেখাতে পারেন তাহলে আরেকটি নতুন অধ্যায় রচনা হবে। যদিও এর আগে ২০০৯ সালে ক্যারিবীয়দের মাটিতে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজে জিতেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু সেটা ছিল ‘দুর্বল’ ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে দ্বন্দ্বের কারণে নিয়মিত ক্রিকেটাররা না খেলার কারণে দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজ খেলতে হয়েছিল উইন্ডিজকে। তবে এবার ক্রিস গেইল, আন্দ্রে রাসেলদের মতো শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সিরিজ জয়ের সুযোগ এসেছে সামনে।
প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের স্পিনারদের ঠিকমতো খেলতেই পারেননি উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানরা। মাশরাফির বুদ্ধিমত্তায় পেস বোলিংয়ের সামনেও তারা ছিল অসহায়। সিনিয়ররা দেখিয়েছেন ক্যারিশমা। তরুণরা কি আজও নিষ্প্রভ থাকবেন?
গায়ানার ইতিহাস কিন্তু লাল-সবুজদের পক্ষেই কথা বলছে! এই প্রোভিডেন্স স্টেডিয়ামে ২০০৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে জয়ের পর এই সিরিজে প্রথম ম্যাচে দ্বিতীয়বারের মতো খেলতে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ৪৮ রানের আরেকটি জয়। আজ কি তবে গায়ানায় তিনে তিন হতে চলেছে? —আর তিনে তিন মানেই তো বাংলাদেশের বাজিমাত।

রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র বন্ধ করছে উত্তর কোরিয়া!

স্যাটেলাইট থেকে উত্তর কোরিয়ার সোহায়ে রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্রের ছবি তুলেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা থার্টি এইট নর্থ । এই ছবি বিশ্লেষণ করে তারা জানিয়েছে, ওই রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্রটি বন্ধ করে দিচ্ছে  উত্তর কোরিয়া। 
মার্কিন পর্যবেক্ষণ সংস্থা থার্টি এইট নর্থ এর দাবি, যুক্তরাষ্ট্রকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছে উত্তর কোরিয়া। 
 উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে সিঙ্গাপুরে বৈঠক করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৈঠকে কোরীয় উপদ্বীপের পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ নিয়ে আলোচনা হয়।  এরই ধারাবাহিকতায় এই রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র ভাঙার খবর পাওয়া গেল।
উত্তর কোরিয়া সোহায়েকে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল। কিন্তু, মার্কিন কর্মকর্তাদের সন্দেহ ছিল, ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জন্য এটা ব্যবহার করা হতো।

তারকাখচিত ছবি 'জ্যাম'র মহরত অনুষ্ঠিত


প্রয়াত নায়ক মান্নার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কৃতাঞ্জলি চলচ্চিত্রের নতুন ছবি 'জ্যাম' এর মহরত জমকালো পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল  আয়োজিত মহরত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, শেলী মান্না, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, ফেরদৌস ও পূর্ণিমা, সুচন্দা, এটিএম শামসুজ্জামানসহ অনেকে।
'জ্যাম' ছবিটি পরিচালনা করবেন নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল। শুটিং শুরু হবে আগামী অক্টোবর মাসে। এ ছবির মূল ভাবনা প্রয়াত আহমেদ জামান চৌধুরীর। আর ছবির কাহিনী বিন্যাস করেছেন শেলী মান্না। ছবির সংলাপ ও চিত্রনাট্য করেছেন পান্থ শাহরিয়ার।
‘জ্যাম’ ছবিতে অভিনয় করবেন ফেরদৌস ও পূর্ণিমা। ছবিতে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত আর আরিফিন শুভর কাজ করার কথা আছে।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ওবায়দুল কাদের বলেন, মান্না অনেক জনপ্রিয় নায়ক ছিলেন। কিন্তু মধ্যগগন থেকে তিনি ঝরে পড়েছেন। আজকের দিনে তার মতো অভিনেতার দরকার ছিল। ‘জ্যাম’ ছবির জন্য শুভকামনা থাকলো।

আমার মনে হয় কোহলি মিথ্যা বলছে: অ্যান্ডারসন


ভারত-ইংল্যান্ডের প্রথম টেস্ট ১ আগস্ট। অন্যভারে বললে, এই টেস্ট হবে বিরাট কোহলি বনাম জেমস অ্যান্ডারসন লড়াইয়ের। টেস্ট ইতিহাসে ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী ২০১৪ সালের সিরিজে বিরাটকে সফল হতে দেননি। ৫ টেস্টে মাত্র ১৩৪ রান করেছিলেন বিরাট। তাই বলাই বাহুল্য, এবার ইংলিশদের মাঠে লাল বলের ক্রিকেটে রান পেতে মরিয়া ভারত অধিনায়ক।
তবে নিজে ব্যর্থ হলেও দলের প্রতি বিশ্বাস আছে কোহলির। তিনি বলেছেন, ‘‌আমি ব্যর্থ হলেও জেতার ক্ষমতা রাখে দল।’‌ কিন্তু জেমস অ্যান্ডারসন বিরাটের এই যুক্তি একেবারেই উড়িয়ে দিচ্ছেন। অ্যান্ডারসন বললেন, ‘‌বিরাটের রান পাওয়া না পাওয়ার উপর সত্যিই কি কিছু নির্ভর করে না?‌ আমার মনে হয় বিরাট মিথ্যা বলছে।’‌
এরপরই ইংরেজ পেসারের সংযোজন, ‘‌ভারতকে জিততে হলে কোহলিকে রান পেতে হবে। দলের জন্য রান করতে মরিয়া থাকবে বিরাট।’‌
অ্যান্ডারসন আরও বলেন, ‘‌অতীত অভিজ্ঞতা থেকে ক্রিকেটাররা শিক্ষা নেয়। আর কোহলির মধ্যে প্রচুর ট্যালেন্ট রয়েছে। কোহলি যে এবার প্রস্তুত হয়েই নামবে সে ব্যাপারে আমি নিশ্চিত।’‌   ‌‌

তীব্র গরমে দিশেহারা জাপান, বাড়ছে মৃতের সংখ্যা


তীব্র তাপপ্রবাহ চলছে জাপানে৷ গরমে ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে কমপক্ষে ৪৪ জনের৷ এর মধ্যে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে ৷ সিএনএনের প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী জুলাই মাসের ৯ তারিখ থেকে এই মৃত্যুর তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে৷ ইতিমধ্যেই মধ্য টোকিওতে তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছুঁয়েছে৷
এছাড়া তাপমাত্রার পারদ ৪১ ডিগ্রি ছুঁয়েছে দেশটির কুমাগায়াতে৷ জাপানের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা একেই ধরা হচ্ছে৷ জাপান আবহাওয়া বিভাগের বক্তব্য স্বাভাবিকের থেকে এই সময়ে তাপমাত্রা ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি৷ দু'হাজারেরও বেশি মানুষকে অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত সপ্তাহের শুরুতে মধ্য জাপানে তাপমাত্রা ছিল ৪০.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। পাঁচ বছরের ইতিহাসে ওই অঞ্চলে এটিই সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা।
সাধারণ মানুষকে তাপপ্রবাহের জন্য সতর্ক করেছে আবহাওয়া দফতর৷ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ছাড়া বাইরে বেরোতে নিষেধ করা হয়েছে৷ সরাসরি সূর্যতাপে বেরোতেও নিষেধ করা হয়েছে৷ পাশাপাশি, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্রের ব্যবহার করতে বলা হয়েছে যত বেশি সম্ভব৷
জুলাইয়ের শুরু থেকেই তাপমাত্রা চড়া জাপানে৷ স্থানীয় সংবাদসংস্থা কিয়োডো জানিয়েছে
রাজধানী টোকিওর বিভিন্ন এলাকায় ৩ হাজার ৯১টি অ্যাম্বুলেন্স পাঠাতে হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে স্কুলগুলির যাবতীয় শিক্ষামূলক ভ্রমণ স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে জাপানের শিক্ষামন্ত্রণালয়৷ গত সপ্তাহেই ৬ বছরের এক স্কুলছাত্র তাপপ্রবাহের জেরে মারা যায়। তারপরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে৷
এদিকে দু'বছর পরে এই সময়েই টোকিও ২০২০ সামার অলিম্পিক শুরু হবে৷ সেকথা মাথায় রেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে জাপান প্রশাসন৷ হনসু, শিকোকু, কাইশু দ্বীপে থাকবে পর্যটকদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা৷ আবহাওয়া দফতরের পক্ষ থেকে থাকবে বিশেষ সতর্কবাণী৷
হোক্কাইডো দ্বীপে এ বছর রেকর্ড তাপমাত্রা দেখা গিয়েছে৷ আবহাওয়াবিদ জোয়েল এন মিয়ারসের মতে যে হারে তাপমাত্রা বাড়ছে, তাতে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে পারে৷ বাড়তে পারে শ্বাসকষ্ট, হৃদরোগের মতো সমস্যা৷ বিপর্যয় মোকাবেলা দফতর জানাচ্ছে গতবছর মে থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অতিরিক্ত গরমে ৪৮ জন মারা গিয়েছিলেন। যার মধ্যে শুধু জুলাই মাসেই ৩১ জনের মৃত্যু হয়। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের মতে, ২০১৪ সালেও জাপানের ২১৩টি জায়গায় রেকর্ড পরিমাণ গরম পড়েছিল৷

সাবধান হয়ে যান, নইলে ‘নজিরবিহীন’ পরিণতি

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানিকে ‘সাবধান হয়ে যেতে’ বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নইলে ‘নজিরবিহীন’ পরিণতি ভোগ করতে হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। এর আগে ট্রাম্পের উদ্দেশে রুহানি বলেন, ‘সিংহের লেজ নিয়ে খেলবেন না’।
ইরান ও ছয় বিশ্বশক্তির মধ্যকার শান্তিচুক্তি নিয়ে ওয়াশিংটন-তেহরানের চলমান উত্তেজনার ভেতর দুই নেতার মধ্যে হুমকি-পাল্টা হুমকির এ ঘটনা ঘটল।
 ‘জয়েন্ট কম্প্রিহেনসিভ প্ল্যান অব অ্যাকশন’ (জেসিপিওএ) নামের চুক্তিটি সই হয়। চুক্তির এক পক্ষে ছিল ইরান। আরেক পক্ষে ছিল ছয় পরাশক্তি—যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, ফ্রান্স, চীন ও জার্মানি। চুক্তি অনুযায়ী, ইরান নিজেদের পরমাণু কর্মসূচি সীমিত করবে। আর এর বিনিময়ে তাদের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। কিন্তু  চুক্তি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন ট্রাম্প। যদিও বাকি পাঁচ পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্রকে বাদ দিয়েই চুক্তি বাস্তবায়ন করতে চায়। তবে এ ক্ষেত্রে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার ভয়ে আছেন এ পাঁচ দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীরা।
চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও জানান, ইরান আন্তর্মহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি থেকে সরে না এলে এবং সিরিয়া ও ইয়েমেন যুদ্ধে হস্তক্ষেপ বন্ধ না করলে তাদের ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে। রুহানি তাৎক্ষণিকভাবে এ হুমকি বাতিল করে দেন এবং গত রবিবার বলেন, ‘আপনি ইরানের জনগণকে তাদের স্বার্থের বিরুদ্ধে যেতে বাধ্য করতে পারেন না।’
রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত ওই ভাষণে রুহানি আরো বলেন, ‘ইরানের সঙ্গে শান্তিতে থাকলে তা হবে সব শান্তির জননী। আর যুদ্ধে লিপ্ত হলে তা হবে সব যুদ্ধের জননী।’ এ ছাড়া ‘সিংহের লেজ নিয়ে খেলা না করতে’ ট্রাম্পকে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।
রুহানির এ বক্তব্যের জবাবে রবিবার রাতে এক টুইটার বার্তায় ট্রাম্প লেখেন, ‘ইরানের প্রেসিডেন্ট রুহানি : আর কখনোই যুক্তরাষ্ট্রকে কোনো হুমকি দিয়েন না। নইলে এমন পরিণতি ভোগ করতে হবে, যা ইতিহাসে খুব কম দেশকেই ভোগ করতে হয়েছে।’ ট্রাম্প আরো লেখেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আর আপনাদের উন্মত্ত সহিংসতা আর মৃত্যুর শব্দের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা কোনো দেশ নয়। সাবধান হয়ে যান!’
ট্রাম্পের আগে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ক্যালিফোর্নিয়ায় এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘আমরা ইরানের শীর্ষ কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে এতটুকু ভয় পাই না।’ পম্পেও বলেন, যেসব দেশ ইরানের তেল কেনে, যুক্তরাষ্ট্র চায় তারা যেন নভেম্বরের মধ্যে তেল কেনা পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। নইলে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে হবে বলেও সতর্ক করে দেন তিনি।
 ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতি কিংবা চুক্তিতে তাদের স্বাক্ষর—কোনোটিই বিশ্বাস করা যাবে না। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যেকোনো চুক্তিই অকার্যকর।’
ট্রাম্পের মন্তব্যকে ‘মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধে লিপ্ত’ হওয়ার সঙ্গে তুলনা করেছেন ইরানের ‘রেভল্যুশনারি গার্ডস’-এর কমান্ডার জেনারেল গোলাম হোসেন গেইপর। গতকাল তিনি বলেন, ‘ইরানের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের মন্তব্য মনস্তাত্ত্বিকভাবে যুদ্ধে লিপ্ত হওয়ার শামিল।’
এদিকে মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতির দিকে নজর রাখেন, এমন অনেক বিশ্লেষক ট্রাম্পের মন্তব্যে অবাক হয়েছেন। সিএনএনের সামরিক বিশ্লেষক রিক ফ্রানকোনা বলেন, ‘আমরা ট্রাম্পের মুখ থেকে এর আগে অনেক মারমুখী কথাবার্তা শুনেছি। কিন্তু সর্বশেষ মন্তব্যটি খানিকটা আলাদা। তাঁর মন্তব্যকে গতানুগতিকের বাইরে এবং অনেক মানুষের জন্য হুমকি বলে মনে হচ্ছে।’

ব্যাট ছেড়ে ব্যাটন! কেমন হবেন 'প্রধানমন্ত্রী' ইমরান খান?

পাকিস্তানের রাজনীতিবিদ ইমরান খানের জীবন যেন উত্তেজনায় ভরপুর। রাজনৈতিকভাবে চরম গোলযোগপূর্ণ দেশটিতে ধীরে ধীরে নিজের অবস্থান পোক্ত করে তুলেছেন ইমরান খান। পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ দলের চেয়ারম্যান ইমরান।
ইমরানের মাঝে দুই ধরনের ব্যক্তিত্বই দেখা যায়। আগামী ২৫ জুলাই নির্বাচনে যদি ইমরান খান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন তাহলে তার ভক্তদের সামনে সেই দ্বৈত চরিত্র প্রকাশিত হবে। জানা যাবে, তিনি কতটা সাদাসিধা এবং তার লোকজন কতটাই বা ভয়ঙ্কর।
ভোটারদের সামনে উন্মোচিত হবে নতুন পাকিস্তানের চিত্র, যা পুরনো পাকিস্তানেরই যেন মেরামত করা ছবি। পাকিস্তানের মধ্যবিত্ত শ্রেণীই ইমরান খানের মূল শক্তি। তারা আবিষ্কার করবেন, যে ইমরান খানকে ভোট দিলেন এই ইমরান খান তা থেকে ভিন্ন। যেন ইমরান খানের দ্বিতীয় ভার্সন।
পাকিস্তানের অন্য সব রাজনীতিবিদ থেকে ইমরান খান ভিন্ন। তিনি রাজনীতিতে নামার আগে ক্রিকেটার হিসেবে একজন ‘জাতীয় বীর’ ছিলেন।
পাকিস্তানের ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিবিদ হয়ে উঠেছেন ইমরান খান। তিনি পাকিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক খেলোয়াড় এবং অধিনায়ক ছিলেন। তিনি বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বকালের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডারদের একজন। তাঁর অধিনায়কত্বে পাকিস্তান ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপ জয় করে।
ক্রিকেটের মূলধনকে রাজনীতির মূলধনে রূপান্তর প্রায় অসম্ভব একটি কাজ ছিল। ইমরান খানকে এজন্য দীর্ঘ দুই দশক অন্ধকারের মাঝে কাটাতে হয়েছে। আশার আলো দেখার অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে দীর্ঘ সময়।
রাজনীতিবিদ হিসেবে ইমরান খানের জীবনের প্রথম অধ্যায় শুরু হয় প্রায় ১৯৯২ সালে। সে বছর তিনি ৪০ বছরে পা দেন। তার টিম বিশ্বকাপ ক্রিকেট জয় করে। সে বছরেই তিনি সাউকাত খানুম ক্যান্সার হাসপাতালের জন্য তহবিল সংগ্রহ শুরু করেন, যা দুই বছর পরে বাস্তবায়িত হয়।
৪০ বছর বয়সটি সারা বিশ্বেই গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয়। কারণ এ বয়সটি জীবনের অন্যতম একটি মাইলফলক। এ বয়সের পরে মধ্যবয়সের সংকটে অনেকেই ভুগতে থাকেন। এ বয়সেই অন্ধকার টানেলের ভেতর থেকে অন্য দিকটি দেখা যায়। জীবনের অর্থটাও বোধগম্য হয় এ বয়সে। অনেকেই আবার এ বয়সে নতুন করে জন্মগ্রহণ করেন- যা হয়েছিল ইমরান খানের বেলায়।
১৯৯২ সালটি তার জীবনে গুরুত্বপূর্ণ। এ বছরেই তিনি মুসলমান হিসেবে তার বৈশিষ্ট্যগুলো প্রকাশ করতে শুরু করেন। রাজনীতিতেও তিনি তার প্রাথমিক অবস্থান প্রকাশ করেন এই বছরেই। তার সমর্থক গোষ্ঠী গড়ে উঠলেও তা খুব একটা কার্যকর হয়নি দীর্ঘদিন।
ইমরান যাদের জন্য কাজ করেছিলেন তারা অবশ্য সর্বদা তাকে সমর্থন করেনি। পাকিস্তানের রাজনীতিতে দুই প্রধান ব্যক্তি যখন প্রবল পরাক্রমশালী ছিলেন, তখন ইমরানকে ভক্তরাও সেভাবে সামনে এগিয়ে নেয়নি। নব্বইয়ের দশকে পাকিস্তানে সামরিক অভ্যুত্থান ও দীর্ঘকাল সামরিক শাসন চললেও ইমরান খান সুবিধা করতে পারেননি। দুর্নীতিবাজ রাজনীতিবিদরাও তার পার্টিতে খুব একটা আগ্রহ পাননি।
২০১৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত অবশ্য ইমরানের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের জন্য ‘স্বর্ণযুগ’। তিনি তার গুরু আসগার খানের মতো জীবযাপন ও মৃত্যুবরণ করার ধারণা ত্যাগ করেন।
ইমরান খান রাজনৈতিক কাঠামো বিষয়ে তার দৃষ্টিভঙ্গিও পাল্টে ফেলেছেন।  তিনি এখন বিশ্বাস করেন কোনো নির্বাচনই রাজনৈতিক শক্তি ও সম্পদ ছাড়া বিজয় অর্জন করা যায় না। এটাই এখন নতুন ইমরান খানের পরিচয়।

গ্রিসে বনে লাগা আগুনে নিহত ২০, আহত শতাধিক


গ্রিসের একটি বনে লাগা আগুনে অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে ১৬ জনই শিশু। আহত হয়েছেন শতাধিকের বেশি। গুরুতর আহত ২৫ জনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। তাদের মধ্যে ১১ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
বনটি গ্রিসের অ্যাথেন্স শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।
মঙ্গলবার দেশটির সরকারি মুখপাত্র দিমিত্রিৎস তজাকোপোলোস গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।
দেশটির প্রধানমন্ত্রী এলক্সিস সাংবাদিকদের বলেছেন, আমরা আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছি। যা যা করার দরকার মানবিকভাবে তা করবো।

সূর্যের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছে নাসার বিশেষ মহাকাশযান


চন্দ্র জয়ের পর এবার সূর্যের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছে আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। 
জানা গেছে, আগামী আগস্ট মাসেই সূর্যের উদ্দেশে পাড়ি দেবে পার্কার সোলার প্রোব নামের ওই মহাকাশযান। সূর্যের বহির্বলয় ছুঁয়ে উড়ে যাবে মহাকাশযানটি। ইতিহাসে এই অভিযান নজিরবিহীন। এর আগে সূর্যের এত পাশ দিয়ে কোন যান যায়নি। ‘ইউনাইটেড লঞ্চ এলায়েন্স’-এর ‘ডেল্টা-৪ হেভি’ রকেটে পাড়ি দেবে মহাকাশযানটি। মার্কিন বিমানবাহিনীর সহায়তায় ফ্লোরিডা থেকে প্রথমবার মহাকাশে পাড়ি দেবে এই রোবটিক যানটি। আকারে একটি গাড়ির সমান যানটিতে রয়েছে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি। সূর্যের ভেতরে চলা জটিল প্রক্রিয়া ও বিকিরণ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করবে ‘পার্কার সোলার প্রোব’। সেই তথ্য বিশ্লেষণ করে অনেক জটিল প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে বলেই মনে করছেন মহাকাশ বিজ্ঞানীরা।
নাসার ‘স্পেস ফ্লাইট সেন্টার’-এর বিজ্ঞানী অ্যালেক্স ইয়ং বলেন, “কয়েক দশক ধরেই সূর্য নিয়ে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছি আমরা। খালি চোখে সূর্যকে যতটা স্থিতিশীল মনে হয়, আদৌ তা নয়। তারাটিতে লাগাতার পরিবর্তন হচ্ছে। চলছে জটিল চুম্বকীয় প্রক্রিয়া। এবার আমরা অনেক জটিল প্রশ্নের উত্তর পেতে সক্ষম হব।” সূর্যের ৪০ লক্ষ মাইল পাশ দিয়ে উড়ে যাবে নাসার মহাকাশযানটি। ভয়ানক উত্তাপ ও বিকিরণের মধ্যে দিয়েও পৃথিবীতে তথ্য পাঠাবে পার্কার সোলার প্রোব। মার্কিন বিজ্ঞানীদের দাবি, অত্যাধুনিক ‘হিট শিল্ড’ যানটিকে অক্ষত রাখবে। আধুনিক কমিউনিকেশন প্যানেল পৃথিবীতে তথ্য পাঠাবে।
মানুষের তৈরি মহাকাশযান যদি সূর্যের করোনায় প্রবেশ করে, তাহলে নতুন ইতিহাস গড়বে নাসা। সূর্যের প্রবল তাপ থেকে বাঁচতে ওই মহাকাশযান ও সেটির যন্ত্রাংশগুলি প্রায় সাড়ে চার ইঞ্চি কার্বন কম্পোজিট দিয়ে পুরু বর্ম দিয়ে সুরক্ষিত থাকবে। সূর্যের আবহাওয়া কেমন?  তা জানতে প্রায় ৬০ লক্ষ কি.মি. দূর থেকে নক্ষত্রটিকে প্রদক্ষিণ করবে নাসার মহাকাশযান। অভিযান সফল হলে, সৌরবায়ুর রহস্য, পৃথিবী প্রাণের উৎপত্তি নিয়ে বহু অজানা তথ্য জানা যাবে। 
প্রসঙ্গত, সূর্যপৃষ্ঠের উষ্ণতা ৫,৫০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো। কিন্তু, পারিপার্শ্বিক অঞ্চলের উষ্ণতা প্রায় ২০ লক্ষ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সবকিছু ঠিকঠাক চললে আগস্টেই ইতিহাসের সাক্ষী হবে বিশ্ব।

নিজের মেয়েকে মাসের পর মাস ধর্ষণ, অতঃপর...


নিজের কিশোরী মেয়েকে মাসের পর মাস ধর্ষণের ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্ম দিল ভারতের রাজস্থান রাজ্যের এক ব্যক্তি। বাবার এমন অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বাধ্য হয়ে মায়ের কাছে অভিযোগ করে সেই কিশোরী। অতঃপর গ্রেফতার করা হয় সেই পাষণ্ড বাবাকে। এই অপরাধে অভিযুক্ত সেই বাবাকে যাবজ্জীবনের সাজা দিল দেশটির একটি আদালত। 
ভারতীয় গণমাধ্যমে বিশেষ আদালতের বিচারক রাজস্থানের কোটা জেলার কাইথুন এলাকার ওই বাসিন্দাকে পকসো ও ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় দোষী সাব্যস্ত করেন। এরপর যাবজ্জীবনের পাশাপাশি ওই ব্যক্তিকে আরও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন।
সরকারি কৌঁসুলি জানিয়েছেন, স্বামীর অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে  নির্যাতিতার মা তাঁর তিন সন্তানকে নিয়ে স্বামীর থেকে আলাদা বসবাস করতে শুরু করেন। কিছুদিন পর স্ত্রীকে ফিরিয়ে না নিলেও এক ছেলে ও এক মেয়েকে দেখভালের নামে নিজের কাছে নিয়ে যান ওই ব্যক্তি। এরপর, সেখানেই নিজের কিশোরী মেয়ের ওপর মাসের পর মাস ধরে যৌন অত্যাচার চালাতে থাকেন ওই ব্যক্তি।
এমন অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে  মায়ের কাছে বাবার এই বিকৃত লালসার কথা খুলে বলে কিশোরী। মেয়ের ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা শুনে সঙ্গে সঙ্গে স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন নির্যাতিতার মা। এই প্রেক্ষিতে পুলিশ অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে।

আল আকসা মসজিদে জোর করে প্রবেশ ইহুদিদের, প্রার্থনা

 সকালে ইসরায়েলি পুলিশের সশস্ত্র প্রহরায় কয়েকশ' ইহুদি জেরুজালেমে অবস্থিত মুসলিমদের পবিত্র মসজিদ আল আকসা চত্ত্বরে জোর করে ঢুকে পড়ে। ইহুদিদের পবিত্রদিন তিশা ভা'ব স্মরণে সেখানে প্রার্থনা করে তারা।স্থানীয় সূত্রের বরাতে এ তথ্য জানা গেছে। 
মুসলমানদের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান এই আল আকসা মসজিদ। ইহুদিরা বিশ্বাস করে যে, তাদের প্রথম ও দ্বিতীয় মন্দিরের অবস্থান ছিল এই আল আকসা মসজিদ চত্বরে। ওই মন্দিরগুলো ধ্বংসপ্রাপ্ত হওয়ার ঘটনাকে স্মরণ করতে তিশা ভা'ব অনুষ্ঠান পালন করা হয়।
স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, রবিবার সকালে শত-শত ইসরায়েলি বাসিন্দা কয়েকটি ছোট-ছোট দলে বিভক্ত হয়ে আল মরোক্কান গেইট দিয়ে আল আকসা মসজিদ চত্ত্বরে প্রবেশ করে। এরপর তারা মসজিদ চত্ত্বরের চারপাশে প্রদক্ষিণ করে। 
সূত্রটি আরো জানিয়েছে, ওই ইসরায়েলিরা মসজিদ চত্ত্বরে ইহুদি ধর্মীয় প্রার্থনা ও আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে। এ সময় কিছু উগ্রপন্থী ইহুদিকে ওই চত্ত্বর থেকে সরিয়ে দেয় ইসরায়েলি পুলিশ। 
তিনি জানান, এ সময় সেখানে ভারী অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত ইসরায়েলি পুলিশ প্রহরায় নিয়োজিত ছিল। পরিচয়পত্র 
ভিডিও দেখুন আর এখানে ক্লিক করুন
ছাড়া কোনো ফিলিস্তিনিকে সেখানে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। 

মধ্যপ্রাচ্যে ঈদুল আজহা পালিত হতে পারে ২২ আগস্ট


মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে আগামী ২২ আগস্ট (বুধবার) পবিত্র ঈদুল আজহা পালিত হতে পারে। দেশটির শারজাহ মহাকাশ এবং জ্যোতির্বিদ্যা কেন্দ্র এ তথ্য জানিয়েছে। খবর খালিজ টাইমসের।
কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ইব্রাহিম আল জারওয়ান জানান, ২২ আগস্ট ঈদুল আজহার সবচেয়ে সম্ভাবনাময় দিন।
টেলিভিশন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, আরব আমিরাতের স্থানীয় সময় অনুযায়ী আগামী ১২ আগস্ট(রবিবার) জিলকদ মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এবং পরদিন ১৩ আগস্ট থেকে জিলহজ মাসের দিন গণনা শুরু হবে। 
সাধারণত জিলহজ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আজহা পালিত হয়। সেই হিসাব অনুযায়ী ইব্রাহিম আল জারওয়ান জানান, আরব আমিরাতে আগামী ২২ আগস্ট ঈদুল আজহা উদযাপিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।
প্রসঙ্গত, মধ্যপ্রাচ্যের সাথে স্থান ও সময়ের পার্থক্যের কারণে সেখানে চাঁদ দেখার পরদিন বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা যায়। 

যেমন চলছে অপুর সংসার


একদিকে কাজ অন্যদিকে জয়, আমার এই দুই পৃথিবী নিয়ে আমি এখন বেশ আছি। নেই কোনো চিন্তা। বেশ ফুরফুরে দিন কেটে যাচ্ছে। সব মিলিয়ে এইতো বেশ ভালো আছি। চিরাচরিত হাসি মাখা মুখ গলিয়ে সাবলীলভাবে বলে গেলেন মিষ্টি মেয়ে অপু বিশ্বাস। এখন শ্রাবণ মেঘের দিন। অঝোরে কিংবা টিপ টিপ করে যখন বৃষ্টি ঝরে তখন কি মনটায়  কোনো নস্টালজিয়া এসে ভিড় করে। মনে পড়ে অতীতের বিশেষ কোনো স্মৃতিঘেরা কথা?
পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে ঢালিউডের মিষ্টি মেয়ে অপু বিশ্বাস বলেন, মানুষের জীবনটাইতো একটা স্মৃতির আধার। পথ চলতে পথের দুধারে শুধু ফুল থাকে না, সেই ফুলে কাঁটাও থাকে। সে কাঁটার আঘাতে মনের গভীরে ক্ষত হয়, রক্ত ঝরে। তাই বলে কী জীবন থেমে থাকে?
জয়কে ঘিরে সময় এখন কেমন কাটছে?
কিছুক্ষণ চুপ থেকে হেসে উঠলেন ঢালিউডের জনপ্রিয় এই নায়িকা। এ হাসিতে তৃপ্তির লেশ ছিল, স্বস্তির গভীরতাও মাপা গেল। নিজেকে কিছুটা সামলে নিয়ে আবার জানতে চাইলেন, ও হ্যাঁ কী যেন বললেন, আচ্ছা জয়ের কথা, দাঁড়ান বলছি, আরে জয়তো আমার বুকভরা পৃথিবী। তার আধো আধো বোলে ‘মা’ ডাকা শব্দে আমার ঘুম ভাঙে। আহা সে কি পরম মমতা। তারপর দুজন মিলে খেলায় মেতে উঠি। ওর যত রাজ্যের আবদার আর খেলাধুলায় দিনটা টইটম্বুর হয়ে ওঠে। মুহূর্তেই হারিয়ে যাই স্বপ্নের মায়াঘেরা পৃথিবীতে। স্বপ্নের সিঁড়ি বেয়ে দুজনে উঠে যাই স্বপ্নীল ভুবনে। এই সুখের নেই কোনো ঠিকানা। খোলা ছাদে দাঁড়িয়ে দুহাত বাড়িয়ে পৃথিবী আর আকাশ বাতাসকে জানিয়ে দিতে চাই—‘আমার মতো এত সুখের নয়তো কারও জীবন’। আবার তৃপ্তির হাসির ঢেউ অপুর স্নিগ্ধ মায়াবী চোখে মুখে।
জয়ের বেড়ে ওঠা নিয়ে অপুর উচ্ছ্বাস ভরা কথা ‘ওর মাঝে প্রতিনিয়ত ট্যালেন্ট লতিয়ে উঠছে’ দোয়া করবেন বিধাতা যেন ওকে দীর্ঘ জীবন দেন আর সত্যিকারের মানুষ করে গড়ে দেন। আমি আর কাঁদতে চাই না। দুচোখকে বলেছি, আর অশ্রু নয়, এবার রংধনুর সাত রঙে ঘেরা পৃথিবী আর আমার জয়কে দেখতে চাই। বলতে বলতে আনমনা হয়ে দূর আকাশে দৃষ্টি মেলেন স্নিগ্ধতায় ভরা অপু।
এবার কাজের কথা শুনতে চাই, কয়েকবার এ প্রশ্নের পুনরাবৃত্তির পর মনভাঙা অপু যেন সম্বিত ফিরে পেলেন বাস্তবের পোড় খাওয়া জীবনে। দীর্ঘ নিঃশ্বাস ফেলে বলেন— ও হ্যাঁ কাজ, আসলে কাজ মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে। সব দুঃখ ভুলিয়ে দেয়। এই যে এখন আমি দুরন্ত গতিতে সব ক্লান্তি ভুলে কাজের পেছনে অবিরাম ছুটে চলছি সকাল-বিকাল-সন্ধ্যা-রাত্রি। হয়তো অনেকে বলতে পারেন ছবির কাজ কমিয়ে স্টেজ শো বা কোনো প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অপুকে কেন বেশি দেখা যায়। এর সরল জবাব নিশ্চয়ই আছে আমার কাছে। ছবির কাজ শুরু করতে হলে মনের মতো গল্প আর চরিত্র পেতে হবে। আমাকেও অভিনেত্রী সুলভ গড়নে ফিরতে হবে। সেই জার্নিটাতো চলছেই। এরই মধ্যে ওপার বাংলার একটি ছবি ‘শর্টকার্ট’ আর এপার বাংলায় ‘শ্বশুর বাড়ি জিন্দাবাদ টু’ ছবিতে কাজ শুরু করেছি। স্টেজ শো আর নানা প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধনীতে কেন যুক্ত হই? তবে শুনুন, মানুষ যে আমাকে এত ভালোবাসে আমি যদি বিপদে না পড়তাম হয়তো বুঝতেই পারতাম না। মানুষের অবারিত ভালোবাসার টানে আমাকে এসব অনুষ্ঠানে ছুটে যেতে হয়। কাউকে না বলতে খারাপ লাগে। নিজের কাছে নিজেকে ছোট মনে হয়। আমি কারও মনে দুঃখ দিতে চাই না। কারণ দুঃখ পাওয়াটা যে কত কষ্টের সেটা আমার মন জানে। আমি এখন সবাইকে সুখী করতে চাই আর নিজে আমার পরম আদরের জয়কে নিয়ে সুখী হতে চাই। আগামী দিনগুলোর জন্য নতুন কিছু কি ভাবছেন? এমন প্রশ্নে সরলা অপুর চোখের কোণের জলকণা চিক চিক করে উঠে। লুকিয়ে চোখ মোছার ব্যর্থ চেষ্টা করেন মায়াবী অপু। তারপর আবার দীর্ঘনিঃশ্বাস ফেলে বলে উঠেন— ওই যে বললাম, জয় এখন আমার সারাটা পৃথিবী। ওকে নিয়ে খুব সুখী হতে ইচ্ছে করে। জয়কে সত্যিকারের মানুষ করে গড়ে তুলতে প্রয়োজনে সাত সমুদ্র পাড়ি দেব। সেই পথ ধরে মা আর ছেলে চলে যাব অনেক দূরে। কোনো এক শান্তিপুর গ্রামে। যেখানে থাকবে শুধু অনাবিল সুখ আর অবারিত শান্তি। আমি আর জয় কখনই আর দুঃখের মুখ দেখতে চাই না। শান্তিপুর গ্রামে চির শান্তির দেখা পেতে চাই। আকাশে কান পেতে শুনতে চাই—‘পৃথিবীতে সুখ বলে যদি কিছু থাকে সে আমার প্রেম...।’

পৃথিবীর বিচিত্র সব বিয়ের বর-কনে!


আজব পৃথিবীর মানুষগুলোও আজব প্রকৃতির। এই মানুষই নিত্য নতুন বিচিত্র সব ঘটনার জন্ম দেয় পৃথিবীতে। তার মধ্যে কিছু ঘটনা হাস্যকর আবার কিছু অবাক করার মতো। সাধারণত সবাই জানে, মানুষ শুধু মানুষকেই বিয়ে করে কিন্তু অনেকেই আছে যারা অন্যান্য প্রাণি ও জিনিসের সাথে বিয়ে করে সারা বিশ্বের মানুষকে তাজ্জব করেছেন। তারা প্রমাণ করেছেন বিয়ে মানেই শুধু নারী-পুরষের দৈহিক সম্পর্ক নয়। এটা মনেরও ব্যাপার বটে। তেমনি কিছু বিচিত্র বিয়ের কথা জেনে নিন তাহলে-
১. গোখরা সাপের সাথে বিয়েঃ
ভারতের ৩০ বছরের এক নারী বিয়ে করেছেন এক গোখরা সাপকে! প্রায় ২০০০ হাজার মানুষ এই বিয়েতে যোগ দেয় এবং পুরোহিতের সামনে পুরো আধা ঘণ্টা বসে থেকে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী এই বিয়ে সম্পন্ন হয়।
২. বালিশের সাথে বিয়েঃ
কোরিয়ান এক ভদ্রলোক বিশেষ ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে বিয়ে করেছে তার ব্যবহৃত বড় কোলবালিশকে যাতে একটা মেয়ের ছবি আকানো। একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সে তার প্রিয় বালিশটাকে বিয়ের পোশাকে সাজিয়ে ধর্মযাজক ডেকে বিয়ে করেন। 
৩. আইফেল টাওয়ারের সাথে বিয়েঃ
৩৭ বছর বয়সী এরিকা লা টুর আইফেল অনেক আগে থেকেই বিভিন্ন অদ্ভুত জিনিসের সাথে সম্পর্ক করেছেন! তার প্রথম ভালোবাসা ছিলো একটা তীরধনুক যা তাকে একজন দক্ষ তীরন্দাজ বানিয়েছে। পরবর্তীতে এরিকা আইফেল টাওয়ারের প্রতি চরম ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে তার কিছু ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের নিয়ে অনুষ্ঠান করে আইফেল টাওয়ারকে বিয়ে করেন এবং নামের শেষে আইফেল শব্দটি ব্যবহার করা শুরু করেন!
৪. কুকুরের সাথে বিয়েঃ
প্রায় বিশ বছর আগে প্রথম বিয়ে করেন অ্যামান্ডা রজার্স। তারপর কয়েক মাসের মধ্যেই স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয় তার। এরপর বিশটি বছর কাটিয়েছেন প্রিয় পোষা কুকুরের সঙ্গে। একজন উপযুক্ত জীবনসঙ্গীর সব গুণ পোষা প্রাণীর মাঝে খুঁজে পেয়ে শেষমেশ বিয়েই করে বসেছেন কুকুরটিকে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃটেনের দক্ষিণ লন্ডনে। আর দশটা বিয়ের আয়োজনের মতো তিনিও বিয়েতে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। তৈরি করেন আলাদা করে বিয়ের পোশাক। বিয়ের অনুষ্ঠানে অ্যামান্ডা সেবাকে চুমুও খান। ২০০ অতিথি উপস্থিত ছিলেন সেই অনুষ্ঠানে। উপস্থিত সবাই নবদম্পতির উপর কাগজের ফুল ছিটিয়ে দেন। বেচারা কুকুর সেটা বুঝে উঠতে না পারলেও বেশ আনন্দেই ছিল সেটা বোঝা গেলে বিয়েতে তোলা ছবি থেকে।
৫. নিজের সাথে বিয়েঃ
এটা আরো আজব ঘটনা। বিয়ে ঘটিত ঘটনায় একেবারে নতুন। ৩৯ বছর বয়সের লিউ উই চায়নার বাসিন্দা। তিনি প্রায় ১০০ অতিথির সামনে নিজেই নিজেকে বিয়ে করেন!
৬. দেয়ালের সাথে বিয়েঃ
ইজা রিত্তা বার্লিনার নামের সাথে বার্লিনার অংশের উপস্থিতিই প্রমাণ করে যে তিনি বার্লিন ওয়ালের কতটা ভক্ত! ১৯৭৯ সালে কিছু সংখ্যক অতিথির সামনে তিনি বার্লিন ওয়ালকে বিয়ে করেন।
৭. ভিডিও গেমসের সাথে বিয়েঃ
জাপানে ভিডিও গেমস প্রিয় এটা সবার জানা কথা। তাই বলে ভিডিও গেমসকে বিয়েই করে বসতে হবে? জাপানীজ নেনে অ্যানেগাসাকি নামের এক তরুণ তেমনটিই করলেন। তিনি বিয়ে করেছে একটা ভিডিও গেমকে আর সেটা বিশাল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে।
৮. গরুর সাথে গরুর বিয়েঃ
বিয়ে শুধু মানুষে প্রাণিতে বা বস্তুতে নয়। প্রাণীতে প্রাণীতেও করানো হয়। কিছুদিন আগে শান্তির আশায় ধুমধাম করে গরুর বিয়ে দেওয়া হলো ভারতে। ভারতের মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা পেতে গঙ্গা ও প্রকাশ নামে দুটি গরুর মাঝে বিয়ে দেওয়া হয়। পাঁচ হাজার গ্রামবাসী এই বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন। একইভাবে, কিছুদিন আগে কুকুরে কুকুরে দিয়ে আলোচিত হয় শ্রীলঙ্কা।

অভিমানী ওজিল বললেন 'বিদায়'


সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না জার্মানির। রাশিয়া বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়ার পর থেকেই তীব্র সমালোচনার মুখে দেশটির ফুটবলাররা। আর এই লজ্জাজনক পারফরম্যান্সের পর সবচেয়ে বেশি দোষারোপ করা হয়েছে মিডফিল্ডার মেসুত ওজিলকেই।
এমনকি এই দল যে আগের আসরে চ্যাম্পিয়ন হলো, সেখানে তার দুর্দান্ত অবদান ছিল, তা ভুলে এবার কেন তিনি ‘খোলস ছেড়ে বেরোতে পারছেন না’, সেজন্য নিক্ষপ করা হচ্ছিল সমালোচনার তীর।
এতো দোষারোপ আর সমালোচনার কারণে ভীষণ অভিমানে আন্তর্জাতিক পরিসরে খেলায় অনাগ্রহই জানিয়ে দিলেন দলের তারকা ওজিল। অবসরের সরাসরি ঘোষণা না দিলেও আর্সেনালের এই প্রাণভোমরা বলেন, ‘জার্মানির হয়ে খেলার আর কোনো ইচ্ছে নেই আমার।’
এদিকে, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপে এরদোয়ানের সঙ্গে একই ছবিতে ফ্রেমবন্দি হওয়া নিয়েও সমালোচনায় পড়েন ওজিল। ওই ছবিতে ওজিলের সঙ্গে ছিলেন সতীর্থ গান্ডুগানও। দু'জনের তুরস্কের বংশোদ্ভূত জার্মান ফুটবলার।
এ ব্যাপারে ওজিল বলেন, ‘কোন রাজনৈতিক কারণ ছিল না ওই ছবির। আমার পূর্বপুরুষের দেশের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ছবি তুলেছি ওই দেশের সঙ্গে আমার শেকড়ের সম্পর্কের সম্মানের জায়গা থেকে। কোন ব্যক্তি প্রেসিডেন্ট, তারচেয়ে ওই দেশের প্রেসিডেন্ট পদটাকেই সম্মান দেখাতে চেয়েছি।’

পরমাণু সক্ষমতা বাড়াচ্ছে ইরান, মজুদে ৯৫০ টন ইউরেনিয়াম


পারস্য সাগর তীরবর্তী দেশ ইরান। দীর্ঘ দিন ধরেই পরমাণু অস্ত্র তৈরি ও ইউরেনিয়াম মজুদ নিয়ে আলোচনায় রয়েছে দেশটি। যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর চাপে এতোদিন পরমাণু কার্যক্রম শিথিল রেখেছিল মধ্যপ্রাচ্যের এ প্রভাবশালী দেশটি। তবে
ইরানের পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে যাওয়ার পর ইউরেনিয়াম মজুদ নিয়ে নতুন তথ্য প্রকাশ করেছে তেহরান।
ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে  দেশটির আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান আলি আকবর সালেহি এক ভাষণে ইউরেনিয়াম মজুদ নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন। তিনি বলেন, এ মুহূর্তে আমাদের কাছে ৯০০ থেকে ৯৫০ টন ইউরেনিয়াম মজুদ রয়েছে। যা ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার জন্য মজুদকৃত ইউরেনিয়াম হিসেবে যথেষ্ট।
তিনি আরও জানান, ইরানের সবোর্চ্চ নেতা আয়াতুল্লা আলী খামেনির নির্দেশে দেশটি ইতিমধ্যেই উন্নত ও আধুনিক সেন্ট্রিফিউজ উৎপাদনের জন্য যন্ত্রাংশ নির্মাণে অবকাঠামো গড়ে তোলার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে পৌঁছেছে।

যে শহরের ৯৩ শতাংশ পকেটমারই নারী!


পকেটমারার কাজটা কঠিন হলেও এতে বেশ পরিপক্ক শহরটির নারীরা। আর এই কাজে তারা এতটাই দক্ষ যে পুরুষদের থেকে ৯৩ ভাগ এগিয়ে আছে তারা। বলছিলাম ভারতের রাজধানী দিল্লির কথা।
ভারতের সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্স এর তথ্য মতে, শহরটির ৯৩ শতাংশেরও বেশি পকেটমার ছিল নারী। আগের বছর এই হার ছিল ৯১ শতাংশ। ফলে এক বছরের ব্যবধানে নারী পকেটমারের সংখ্যা আরও বেড়েছে।
সংস্থাটির তথ্য অনুযায়ী, জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এক হাজার ২২২ জন নারী ও ৮৯ পুরুষ পকেটমারকে গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতার হওয়া নারীদের বেশির ভাগের বয়স ১৮ থেকে ৪০। দিল্লির ১৪০টি মেট্রো স্টেশনে সাদা পোশাকে নারী পুলিশ মোতায়েন করে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল।
সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের মতে, ছদ্মবেশ নেয়া সহজ হওয়ায় পুরুষের চেয়ে নারীরাই বেশি হারে পকেটমার হচ্ছে। তারা প্রায় সময়েই ছোট ছোট শিশুদের নিয়ে ছদ্মবেশ ধারণ করে।
এছাড়া অনেকে নারীদের পকেটমার হিসেবে সন্দেহ করে না। আর এই সুযোগটা নিয়েই তারা দিল্লির স্টেশনগুলোতে পকেট মেরে থাকে।
সংস্থাটির মতে, পকেটমারার জন্য নারীদের বিরুদ্ধে সাধারণত অভিযোগ করেন না ভুক্তভোগীরা।
প্রতি বছর পকেটমারের পর ৬৮ লাখ রুপি উদ্ধার করে আসল মালিকের কাছে ফেরত দেয়া হয়। কিন্তু অভিযুক্ত পকেটমারদের বিরুদ্ধে মাত্র ১৮টি মামলা হয়েছে। বাকিরা নারীদের বিরুদ্ধে মামলা করতে চায়নি।
ভুক্তভোগীদের এই না চাওয়াকে নারীদের পকেটমার হওয়ার অন্যতম কারণ মনে করে সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্স

ওয়াইফাই স্পিড বাড়ানোর কার্যকরী ৫টি উপায়!

তথ্য প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় ইন্টারনেট এখন প্রায় নিত্যপ্রয়োজনীয়। অফিস হোক বা বাড়ি, সোশ্যাল মিডিয়া বা মেইল চেক করা, সব ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের প্রয়োজন। তাই বাড়িতে এখন ওয়াইফাই রাউটার বসানোর চাহিদা বাড়ছে। কারণ, একদিকে যেমন একাধিক ডিভাইস এক সঙ্গে কানেক্ট করা যায়, তেমন ঘরের যে কোনও প্রান্তে বসে ইন্টারনেট সার্ফিং করা যায়। 
তবে রাউটার বসালেও বেশ কিছু কারণে ইন্টারনেটের স্পিড ভালো মেলে না। এই ৫টি বিষয় মাথায় রাখলে সহজেই ওয়াই-ফাই স্পিড অনেকটা বাড়িয়ে নেওয়া যায়। দেখুন সেই ৫টি উপায় কী কী...
১. রাউটার বাড়ির মাঝখানে রাখুন: 
সাধারণত কানেকশন নেওয়ার সময় তারের পরিমাণ কম রাখার জন্য জানালার পাশে ঘরের এক কোনে রাউটার রেখে দেওয়াই দস্তুর। সবচেয়ে ভালো কভারেজ পেতে রাউটারকে বাড়ির মাঝের ঘরে রাখুন। মনে রাখবেন, ওয়াই-ফাই ওমনি-ডাইরেকশনালি ছড়ায়। অর্থাৎ, চোঙ থেকে আওয়াজ যে ভাবে বার হয় অনেকটা সে রকমই রাউটারকে কেন্দ্র করে সিগনাল ছড়াতে থাকে। তাই এক কোনও রাখলে অর্ধেক সিগনাল বাড়ির বাইরে চলে যাবে। ফলে স্পিড এমনিতেই কম পাবেন।
২. চোখের উচ্চতায় রাখুন: 
মাটি থেকে ৫ ফুট উচ্চতায় রাউটারটি বসালে সিগনাল সবচেয়ে ভালো মেলে। মোটামোটি নিজের চোখের উচ্চতায় রাউটার রাখুন। সিগনালে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে এমন কোনও ডিভাইসের সঙ্গে রাউটার রাখবেন না। যেমন, কর্ডলেস ফোনের বেস, অন্য কোনও রাউটার, প্রিন্টার, মাইক্রোওয়েভ ইত্যাদি।
৩.  কম ডিভাইস কানেক্ট করুন:

বাড়িতে কোনও অনুষ্ঠান বা পার্টি রয়ছে। বন্ধুবান্ধব-আত্মীয়রা সকলেই আসছেন। ঠিক করলেন, বাড়ির ওয়াই-ফাই সকলের ব্যবহারের জন্য কানেক্ট করে দেবেন। সেই সঙ্গে নিজেও টুকটাক কাজ করে নেবেন। মনে রাখবেন এক সঙ্গে বেশি জিভাইস কানেক্ট করলে ওয়াই-ফাই স্পিড অত্যন্ত কমে যাবে। এখন বেশ কিছু রাউটারে ডিভাইস ব্লক করার অপশন রয়েছে। যদি দেখেন কোনও নির্দিষ্ট ডিভাইস বেশি ব্যান্ডউইডথ টেনে নিচ্ছে, তাকে ব্লক করুন। শুধুমাত্র ইন্টারনেট সার্ফ করার জন্য ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে বলুন। যদি কেউ কিছু ডাউনলোড করতে চান, তাঁকে অপেক্ষা করতে বলুন বা নিষেধ করুন।
৪. রিপিটার কানেক্ট করুন: 
ওয়াই-ফাই স্পিড বেশ কিছুটা বাড়িয়ে দেবে রিপিটার। বাজারে এবং অনলাইন শপিং সাইটে বহু রিপিটার পেয়ে যাবেন। দাম মোটামোটি ১০০০ টাকা থেকে শুরু। কনফিগার করাও খুব সহজ। বাড়িতে যদি পুরনো কোনও ভালো রাউটার থাকে সেটাও রিপিটার হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে এর জন্য সেটিং পেজে গিয়ে কনফিগার করতে হবে।
৫. USB রাউটার ব্যবহার করুন: 
রাউটার কেনার আগে দেখে নিন তাতে USB পোর্ট আছে কিনা। চেষ্টা করুন USB পোর্টযুক্ত রাউটার কিনতে। কারণ USB পোর্ট থাকলে তাতে এক্সটার্নাল হার্ড ড্রাইভ কানেক্ট করতে পারেন। এটা নেটওয়র্ক স্টোরেজের মতো কাজ করতে সমস্ত কানেক্টেড ডিভাইজের জন্য। অথবা প্রিন্টারও কানেক্ট করতে পারেন। এতে কোনও একটি ডিভাইসের সঙ্গে কানেক্ট করার প্রয়োজন পড়বে না। নেটওয়র্কে থাকা যে কোনও ডিভাইস থেকে প্রিন্ট দেওয়া যাবে। সাধারণত দেখা যায়, এ ধরনের রাউটার বেশ শক্তিশালী হয়। তাতে সিগনালও বেশ ভালো পাওয়া যায়।

প্রথম ওয়ানডেতে দুর্দান্ত জয় পেল মাশরাফিরা


মাশরাফির জাদুতে প্রথম ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪৮ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। টাইগারদের বোলিং তোপে ৯ উইকেটে মাত্র ২৩১ রান তুলতে সক্ষম হয় স্বাগতিকরা। এদিন বল হাতে সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন নড়াইল এক্সপ্রেস। ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্বীকৃত ব্যাটসম্যানদের কাবু করেছেন কৌশলে, নিয়েছেন ৪টি উইকেট। এভিন লুইসকে দিয়ে শুরু তারপর একে একে জেসন হোল্ডার, আন্দ্রে রাসেল ও অ্যাশলি নার্সকে সাজঘরে ফেরান টাইগার অধিনায়ক। গায়ানার ম্যাচে স্বরূপে প্রত্যাবর্তন হয়েছে মুস্তাফিজেরও। কাটার মাস্টারের স্লোয়ার ও মায়াবি কাটারে পরাস্ত হয়েছেন হেটমায়ার ও রুভমান পাওয়েল। পর পর দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মিডল অর্ডারে ধস নামান মুস্তাফিজুর রহমান। মুস্তাফিজ নিজের চতুর্থ ওভারে এসে সাজঘরে ফেরান ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠা মায়ারকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংসে মায়ারের ৫২ রানই সর্বোচ্চ। মায়ারকে ফেরানোর পরের বলেই রুভমান পাওয়েলকেও মুশফিকের ক্যাচে পরিণত করে 'দ্য ফিজ'। এদিন ক্রিস গেইল ব্যক্তিগত ৪০ রানে মাহমুদুল্লাহর থ্রোতে রান আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেন। সেখান থেকেই ম্যাচের লাগাম চলে আসে বাংলাদেশের হাতে। যদিও গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে আম্পায়ারের কল্যাণে এদিন দুইবার এলবিডব্লিউর হাত থেকে বেঁচেছেন ক্রিস গেইল। প্রথমবার মিরাজের বলে আর দ্বিতীয়বার মোসাদ্দেকের বলে। তবে শেষ পর্যন্ত নিজেদের ভুলে মোসাদ্দেকের ওভারেই রান আউট হন গেইল। উইকেট পেয়েছেন মিরাজ, রুবেল হোসেনও।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে সর্বোচ্চ ৫২ রান করেছেন হেটমায়ার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান এসেছে ক্রিস গেইলের ব্যাট থেকে ৪০ রান। তবে শেষ উইকেট জুটিতে বাংলাদেশকে বেশ ভুগিয়েছেন দুই টেল এন্ডার জোসেফ ও বিষু। দুজনে মিলে ৫৯ রানের জুটি উপহার দেন। জোসেফ ২৯ ও বিষু ২৯ রানে অপরাজিত থাকেন।
এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওয়ানডেতে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২৮০ রানের টার্গেট দেয় সফরকারী বাংলাদেশ। তামিম, সাকিব ও মুশফিকের ব্যাটে ভর করে ৪ উইকেট হারিয়ে ২৭৯ রান সংগ্রহ করে মাশরাফি বাহিনী। তামিম ১৬০ বলে ১০টি চার ও ৩টি ছক্কার মারে ১৩০ রান করে অপরাজিত থাকেন। আর সাকিব করেন ৯৭ রান। তবে ইনিংসের শেষ দিকে মুশফিকুর রহিমের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ। মুশফিক মাত্র ১১ বলে ৩০ রান করেন।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে বিষু ২টি, আন্দ্রে রাসেল ও জেসন হোল্ডার ১টি করে উইকেট সংগ্রহ করেন।

স্মার্টফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার সহজ উপায়


স্মার্টফোনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো ব্যাটারি। যদি ব্যাটারিতে চার্জ না থাকে তাহলে সেই ফোন কোন কাজেই আসে না। পাশাপাশি, সঠিকভাবে চার্জ করা না হলে কম সময়ে তা নষ্টও হয়ে যেতে পারে। তাই ফোনের ব্যাটারির দিকে একটু বিশেষ নজর দিতেই হয়। কিন্তু অনেকেই জানেন না কখন, কিভাবে ফোনটি চার্জ দিতে হবে। কিংবা, কোন চার্জার দিয়ে চার্জ দেয়া উচিত বা আর কোনটি দিয়ে নয় তাও অজানা অনেকের। তবে আর দেরি না করে চলুন জেনে নেই ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার চমৎকার কিছু উপায়।
১. সারা রাত চার্জ নয়
অনেকেই রাতের বেলা ফোন চার্জে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এতে ফোনটি সারা রাত ধরে চার্জ হয়। এর ফলে ওভার চার্জিং হয়ে থাকে। যা ফোনের জন্য মোটেও ভালো কিছু নয়। এছাড়া সারা রাত ফোনে চার্জে দেওয়ার ফলে ব্যাটারি অতিরিক্তি গরম হয়ে বিস্ফোরণও ঘটতে পারে।
২. ফোনের নিজস্ব চার্জার দিয়ে চার্জ দেওয়া
ফোনটি যদি সেই ফোনের সাথে পাওয়া চার্জারে চার্জ দেওয়া হয় তবে ব্যাটারির আয়ু বাড়ে। এখন অবশ্য ফোনে চার্জ দেওয়ার জন্য রয়েছে মাইক্রোইউএসবি পোর্ট। তাই যে কোনো চার্জার দিয়ে ফোনে চার্জ দেওয়া যায়। তবে যদি চার্জিংয়ের সময় ফোনের নিজস্ব চার্জার ব্যবহার না করা হয় তাহলে ধীরে ধীরে ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা কমতে থাকে। 
৩. কখন চার্জে দিবেন ফোন
ফোনে ২০ শতাংশের উপরে চার্জ থাকলে চার্জ দেওয়া উচিত নয়। আবার ব্যাটারি চার্জ শূন্য করেও চার্জে দেওয়া ঠিক নয়। কেননা অপ্রয়োজনীয় রিচার্জে ব্যাটারির আয়ু কমে যায়। সেক্ষেত্রে কমপক্ষে ৫-২০ শতাংশ চার্জ থাকা অবস্থায় ফোন চার্জে দেওয়া ভালো।
৪. কেস খুলে রাখা
যখন ফোন চার্জে দেওয়া হয় তখন ব্যাটারি কিছুটা গরম হয়ে যায়। ব্যাটারি গরমের প্রভাব ফোনে ছড়িয়ে পড়ে। তাই ফোনকে অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে রক্ষা করতে চার্জে থাকা অবস্থায় ফোনের নিরাপত্তামূলক কেসিং বা কভার খুলে রাখা উচিত।
৫. পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহারের সময়
পাওয়ার ব্যাংকের মাধ্যমে চার্জ দেওয়া অবস্থায় ফোন ব্যবহার করা উচিত নয়। কেননা পাওয়ার ব্যাংকের সাহায্যে চার্জ করার সময় ব্যাটারি গরম হয়ে যায়। একই সময় ফোনটি ব্যবহার করলে তা আরও গরম হয়ে যাবে। যা ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর।
৬. সস্তা চার্জার ব্যবহার না করা
অনেক সময় ফোনের জন্য নির্ধারিত চার্জারটি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে অনেকেই বাজার থেকে সস্তা ও অখ্যাত ব্র্যান্ডের চার্জার কেনেন। এসব চার্জারে চার্জ দিলে ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়। চার্জ হতেও সময় বেশি নেয়। আর অ্যাডাপ্টারে সমস্যা দেখা দিলে ফোন ও ব্যাটারি দু'টোই নষ্ট হতে পারে। তাই সস্তা চার্জার ব্যবহার না করাই ভালো।
৭. ব্যাটারি অ্যাপ্লিকেশন
ফোনের জন্য অনেক থার্ডপার্টি ব্যাটারি অপটিমাইজ অ্যাপ রয়েছে। এই অ্যাপগুলো ফোনের ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু থাকে। এতে করে ফোনের চার্জ আরও বেশি ব্যয় হয়। এছাড়া লকস্ক্রিনটি অ্যাপগুলো এড লোড করে থাকে। তাই ফোনে আলাদা কোনো ব্যাটারি অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত নয়।

বিমান ধ্বংসের ৫০ বছর পর সন্ধান ভারতীয় সেনার লাশের

৫০ বছরেরও আগে বিধ্বস্ত ভারতীয় বিমান বাহিনীর(আইএএফ)একটি বিমান এবং বিমানসেনার মরদেহের সন্ধান মিলেছে। ভারতের উত্তরাঞ্চলের হিমাচল প্রদেশে এই বিমানটির সন্ধান মিলেছে। শনিবার ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। 
ভারতীয় সূত্র বলছে, ১৯৬৮ সালে বিধ্বস্ত হয়েছিল। বিমানটি ধ্বংসাবশেষের যেখানে সন্ধান মিলেছে এটি সেখানেই সেসময় বিধ্বস্ত হয়েছিল। 
সূত্রটি জানায়, একদল পর্বতারোহী 'চন্দ্রভাগা-১৩' পর্বতশীর্ষে আরোহনের সময় বিমানটির ধ্বংসাবশেষের সন্ধান পায়। সেখানে তারা বিধ্বস্ত বিমানটি এবং জমাট বাঁধা(হিমায়িত)অবস্থায় একটি মরদেহ দেখতে পায়। 
জানা গেছে, এএন-১২ বিমানটি সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের তৈরী। ১৯৬৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী বিমানটি নিখোঁজ হয়ে যায়। ভারতের লেহ এলাকা থেকে চন্ডিগড় যাওয়ার পথে দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে পাইলট পথ হারিয়ে ফেলেন।