Hot!

Other News

More news for your entertainment

সূর্যের প্রায় দোরগোড়ায় পৌঁছে গেল নাসা'র মহাকাশযান


এই প্রথম সূর্যের প্রায় দোরগোড়ায় পৌঁছে গেল মানুষের তৈরি কোন মহাকাশযান। নাসা এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, গত ২৯ তারিখ স্থানীয় সময় দুপুর ১.‌০৪ মিনিট নাগাদ সূর্যের পৃষ্ঠের ৪২.‌৭৩ কিলোমিটার দূর পর্যন্ত পৌঁছে গেছে ‘‌পার্কার সোলার প্রোব’‌। 
এর আগে ১৯৭৬ সালের এপ্রিলে জার্মান-আমেরিকান মহাকাশযান 'হেলিওস-২' সূর্যের পৃষ্ঠের ২৪৬৯৬০ কিলোমিটার কাছে পৌঁছে গিয়েছিল। জানা গেছে, বুধবার প্রথমবার সূর্যের আরও কাছাকাছি পৌঁছাবে পার্কার। সূর্যকে নিয়ে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য মোট ২৪টা ফ্লাইবাই করবে এই মহাকাশযান। এখনও পর্যন্ত সব থেকে দ্রুতগামী মহাকাশযানের রেকর্ড তৈরি করেছে পার্কার সোলার প্রোব।  
প্রসঙ্গত, গত অগাস্টে সূর্যবলয়ের রহস্য ভেদ করতে মহাকাশে পার্কার সোলার প্রোব উৎক্ষেপণ করে নাসা। মোট ১০৫ কোটি মার্কিন ডলার ব্যয়ে তৈরি এই মহাকাশযান এমন বিশেষভাবে তৈরি যে সূর্যবলয়ের চরম তাপেও তা নষ্ট হবে না।  

প্রিয়াঙ্কার বিয়েতে আমন্ত্রণ পাবেন না তার সাবেকরা, বাদ শাহরুখ খানও


চলতি বছরের ডিসেম্বরে গাঁটছড়া বাঁধবেন নিক জোনাস এবং প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। ভারতের রাজস্থানের উমেদ ভবনে বসবে নিক-প্রিয়াঙ্কার বিয়ের আসর। কিন্তু প্রিয়াঙ্কার বিয়েতে কারা কারা হাজির থাকবেন আর কারা বাদ পড়বেন, তাই নিয়ে এখন বলিউড পাড়ায় কানাঘুষো চলছে।
সূত্রের খবর, বিয়ের পিঁড়িতে বসে কোনরকম অস্বস্তির মধ্যে পড়তে চান না প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। আর সেই কারণেই নাকি সাবেক প্রেমিকদের বিয়ের আমন্ত্রণ পত্র থেকে ছেটে ফেলতে চাইছেন তিনি। আর সেই কারণেই প্রিয়াঙ্কার বিয়ের আমন্ত্রণপত্র থেকে বাদ পড়তে পারেন অক্ষয় কুমার, শহিদ কাপুর, হারমান বাওয়েজারা। এমনকি, বাদ পড়তে পারেন শাহরুখ খানও। 
এ বিষয়ে এখনও স্পষ্ট করে কিছু জানা না গেলেও, নিক-প্রিয়াঙ্কার বিয়েতে আমন্ত্রিতদের তালিকা নিয়ে নাকি ইতিমধ্যেই নির্বাচন পর্ব শুরু করে দিয়েছে চোপড়া পরিবার। বিয়ের আসরে বসে মেয়েকে যাতে কোনভাবে অস্বস্তিকর পরিবেশের মধ্যে না পড়তে হয়, তার জন্য সজাগ প্রিয়াঙ্কার মা মধু চোপড়াও।
সম্প্রতি ধুমধাম করে বাগদান পর্ব সারার পর শোনা যায় মার্কিন মুলুকে নাকি বিয়ে সারবেন নিক-প্রিয়াঙ্কা। হওয়াই দ্বীপে বসবে নিক-প্রিয়াঙ্কার বিয়ের আসর। কিন্তু সেই পরিকল্পনা বাতিল হয়ে জানা যায়, রাজস্থানের বিলাসবহুল উমেদ ভবনে সাতপাকে বাঁধা পড়বেন নিক-প্রিয়াঙ্কা। আর তাদের বিয়েতে অতিথির সংখ্যাও থাকবে একেবারে হাতে গুনে। অর্থাৎ হলিউড এবং বলিউডের ঘনিষ্ঠরা ছাড়া অন্য কেউ নিক-প্রিয়াঙ্কার বিয়েতে নিমন্ত্রণ পাবেন না অলেই শোনা যাচ্ছে।

শব্দের থেকে ৮ গুণ দ্রুত ছুটবে রাশিয়ার নতুন মারণাস্ত্র


যুদ্ধের জন্য রাশিয়ার অস্ত্রাগারে প্রস্তুত রয়েছে শব্দের চেয়ে আট গুণ বেশি গতি সম্পন্ন মিসাইল। এমনটাই জানানো হয়েছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রালয়ের তরফ থেকে। মস্কোর সামরিক কাউন্সিলের প্রধান ভিক্টর বন্দারেভ জানিয়েছেন, ‘জিরকন’ নামের সেই ক্রুজ মিসাইল বর্তমানে রাশিয়ার অস্ত্রাগারে প্রস্তুত রয়েছে।
রাশিয়ার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, সেই মিসাইলের গতি শব্দের থেকে আট গুন বেশি। ইসরায়েল, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের সঙ্গে অস্ত্র প্রতিযোগিতায় পাল্লা দিতে রীতিমত তৈরি ওই মিসাইল। এমনকি এটি ন্যাটো মিসাইল ইন্টারেসপ্টরকেও গুঁড়িয়ে দিতে পারে বলে দাবি রাশিয়ার। 
২০ বছর ধরে তৈরি করা হয়েছে এই মিসাইল। ১৯৯৫ সালে প্রথম প্রকাশ্যে আনা হয় এই মিসাইল। রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ, সাবমেরিন, মিসাইল লঞ্চারে থাকবে এই মিসাইল। শত্রুপক্ষের জাহাজ নিধন করতে পারবে এটি ৬১৩৮ মাইল প্রতি ঘণ্টা বেগে এটি ৬৫০ মাইল যেতে পারবে।
বন্দারেভ আরও জানিয়েছেন, বর্তমানে রাশিয়ার কাছে রয়েছে, বম্বার, ট্যাকটিক্যাল মিসাইল, ব্যালিস্টিক ও ক্রুজ মিসাইল, এয়ার ডিফেন্স মিসাইল সিস্টেম, পরমাণু মিসাইল। ন্যাটোর সঙ্গে পাল্লা দিতে কয়েক বিলিয়ন খরচ করছে রাশিয়া। হাইপারসনিক মিসাইলের লড়াইতে মস্কো ১৫ বছর এগিয়ে থাকবে।

দামি গাড়ি নিয়ে প্রেমের প্রস্তাব, কিন্তু পরের কাণ্ড অভাবনীয়! (ভিডিও)


টাকা, গাড়ি ও দামি গিফট। এত কিছু দিয়ে যুবক ভেবেছিলেন হয়তো নিজের পছন্দের মানুষটির মন জিততে পারবেন। কিন্তু পরের কাণ্ড অভাবনীয়।
খবর অনুযায়ী, সম্প্রতি চীনে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা গেছে, ল্যামবোরগিনি করে এক যুবক রাস্তায় অপেক্ষা করছেন। আশেপাশের গোটা এলাকা সাজিয়ে রেখেছেন তিনি। কিছুক্ষণ পরেই নিজের পছন্দের মানুষটিকে আসতে দেখে, তার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে প্রেম প্রস্তাব দেন ওই যুবক।
কিন্তু তারপরেই বিচিত্র কাণ্ড ঘটল। দামি গিফট, গাড়ি দেখেও ওই যুবকের প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া দিলেন না সেই যুবতী। এরপরেই ওই যুবক জোরাজুরি শুরু করেন। রেগে গিয়ে ওই তরুণী তাঁর বান্ধবীকে নিয়ে সেখান থেকে চলে যান।
স্বাভাবিকভাবেই রেগে যান ওই যুবক। গিফটের প্যাকেটগুলো নিজের বন্ধুদের দিকেই ছুঁড়ে মারতে থাকেন তিনি। তেড়ে গিয়ে মারতে যান সবাইকে। অনেক কষ্টে শান্ত করা হয় তাঁকে। ওই যুবক কিংবা যুবতীর নাম, পরিচয় জানা যায়নি। তবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত কেউ একজন গোটা ঘটনার ভিডিও করে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে দেন। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় এটি।  .....https://youtu.be/RXsGw1J8O1g

খালেদার আপিলের রায় আজ

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার করা আপিলের রায় আজ মঙ্গলবার ঘোষণা করবেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে অন্য দুই আসামির আপিল ও খালেদার সাজা বাড়াতে দুদকের করা রিভিশনের রায় ঘোষণা করা হবে। এ রায় ঘোষণা করবেন বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো.মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।
চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে  পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে খালেদা জিয়াসহ ছয় আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। আসামিদের সবাইকে ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা ৮০ পয়সা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। রায়ে এই অর্থদণ্ডের টাকা প্রত্যেককে সমান অঙ্কে প্রদান করার কথা বলা হয়।
কিন্তু আদালতের এই রায়ের(কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড) বিরুদ্ধে আপিল করেন খালেদা জিয়া। এ ছাড়াও সাজার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন কারাগারে থাকা অপর আসামি কাজী সালিমুল হক কামাল ও শরফুদ্দিন আহমেদ পৃথক আপিল করেন। অপরদিকে খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধি চেয়ে দুদক একটি আবেদন করে, যার ওপর শুনানি নিয়ে ২৮ মার্চ রুল দেন আদালত। এই পৃথক তিনটি আপিল ও দুদকের আবেদনের ওপর গতকাল সোমবার বিকেলে শুনানি হয়। পরে শুনানি শেষে এই মামলার রায় ঘোষণার জন্য আজ মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন আদালত। 
আদালতে এদিন দুদকের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান। তবে খালেদা জিয়ার পক্ষে কোনো আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন না।
আরো জানা গেছে, খালেদা জিয়াসহ তিন আসামির আপিল এবং দুদকের রিভিশন এক নম্বরে রাখা হয়েছে।
এ ব্যাপারে দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান বলেন, খালেদা জিয়ার করা আপিলসহ তিন আসামির আপিল ও দুদকের সাজা বৃদ্ধি চেয়ে আবেদনের ওপর ৩২ দিন শুনানি হয়। শুনানি শেষে হাইকোর্ট মঙ্গলবার রায়ের জন্য দিন ধার্য করেছেন।

বিয়ের পর শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গে থাকতে চান না দীপিকা!


বলিউড তারকা রণবীর সিং ও দীপিকা পাডুকোনের বিয়ে আগামী ১৪ ও ১৫ নভেম্বর। বি-টাউন আপাতত তাদের বিয়ে নিয়েই মেতে রয়েছে। তারই মাঝে শোনা যাচ্ছে, দীপিকা নাকি তাঁর শ্বশুর-শাশুড়ি অর্থাৎ রণবীর সিংয়ের বাবা-মা (জগজিৎ সিং ভবানি ও মা অঞ্জু সিং ভবানি) এর সঙ্গে থাকতে চান না। আর সেই কারণে নাকি নতুন করে বাড়ি সাজাতে হয়েছে রণবীরকে।
শোনা যাচ্ছে, রণবীরের নাকি ইচ্ছে ছিল বিয়ের পর তিনি তাঁর বাবা-মায়ের পুরনো বাড়িতে তাঁদের সঙ্গেই থাকবেন। তবে দীপিকার নাকি তাতে সম্মতি দেননি, যা শুনে রণবীর সিং ও তাঁর পরিবার কিছুটা দুঃখ পান। তবে দীপিকা যে এক্কেবারেই রণবীরের বাবা-মায়ের থেকে আলাদা থাকছেন তেমনটাও যদিও নয়। দীপিকার কথা মত, একই বাড়িতে থাকলেও বাড়ির দু'টো আলাদা দিকে থাকবেন তাঁরা। একদিকে থাকবেন দীপিকা ও রণবীর। অন্যদিকে থাকবেন রণবীরের বাবা-মা ও বোন। সেকারণে রণবীর সিং কিছুদিন আগে রণবীর মুম্বাইয়ে একই অ্যাপার্টমেন্টের দুটি ফ্লোর একসঙ্গে কিনেছেন। যার একটিতে থাকবেন রণবীরের বাবা-মা জগজিৎ সিং ভবানি ও অঞ্জু ভবানি এবং রণবীরের বোন ঋত্বিকা ভবানি। অন্য ফ্লোরে থাকবেন নববিবাহিত দীপিকা ও রণবীর। 
প্রসঙ্গত, যদিও দীপিকার সঙ্গে রণবীর সিংয়ের বাবা-মা ও বোনের সম্পর্ক কিন্তু বেশ ভালো। দীপিকার বহুদিন আগে এক সাক্ষাৎকারে মুম্বাইয়ে রণবীরের পরিবারকেই তাঁর পরিবার বলে মন্তব্য করেছিলেন।  

যুক্তরাষ্ট্রে ইহুদিদের উপাসনালয়ে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৮


যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য পেনসিলভানিয়ার পিটসবার্গ শহরে বন্দুকধারীর গুলিতে কমপক্ষে আটজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় তিন পুলিশ আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন। স্থানীয় সময়  সকালে শহরের একটি সিনাগগের (ইহুদিদের উপাসনালয়) কাছে এ গুলির ঘটনা ঘটে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আজ এ খবর জানিয়েছে।
এদিকে ঘটনার পর দেশটির আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর হওয়ার পর এক বন্দুকধারী আত্মসমর্পণ করে। গুলির ঘটনার পর এলাকায় ছোটাছুটি শুরু হয়ে যায়। খবর পেয়েই আশপাশ থেকে ছুটে আসে পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য। সেইসঙ্গে ঘটনাস্থলে কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্সও দেখা যায়। তবে সিবিএস নিউজ আটজন নিহত হওয়ার কথা বললেও সিএনএন-ওয়াশিংটন পোস্টসহ অন্যরা সংখ্যাটা কমিয়ে বলছে।

যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে রাশিয়া!


রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ফের উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। রাশিয়ার সঙ্গে পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বেরিয়ে যাওয়ার হুমকি এবং স্ক্যান্ডিনেভিয়ান অঞ্চলে মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সামরিক মহড়াকে কেন্দ্র করেই সম্প্রতি এই উত্তেজনার সৃষ্টি। তাছাড়া, রাশিয়ার ওপর সম্প্রতি নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র আগুন নিয়ে খেলছে বলেও দাবি করে আসছে মস্কো। এদিকে, ট্রাম্প প্রশাসন রাশিয়ার সামরিক ও গোয়েন্দা সংশ্লিষ্ট আরও ৩৩ ব্যক্তি ও সংস্থাকে নিষিদ্ধের তালিকাভুক্ত করেছে। 
সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের এমন উস্কানির জবাব দিতে রুশ সামরিক বাহিনী প্রয়োজনে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত বলে জানিয়েছে রাশিয়া। এ অবস্থায় বিশ্বে নতুন করে অস্ত্র প্রতিযোগিতা শুরু হতে পারে বলে আশঙ্কা বিশ্লেষকদের। রাশিয়ার সীমান্তবর্তী এলাকায় গত বৃহস্পতিবার বড় ধরনের সামরিক মহড়া শুরু করে ন্যাটো, যা চলবে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত।
জবাবে রাশিয়াও চূড়ান্ত যুদ্ধের প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা। যুক্তরাষ্ট্র বাড়াবাড়ির মাত্রা অতিক্রম করলে তার জবাব দেওয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।
এদিকে, ন্যাটোর সামরিক মহড়ায় অংশ নিচ্ছে জোটের দেশগুলোর ৫০ হাজারের বেশি সেনা। মহড়ায় থাকছে ৬৫টি যুদ্ধজাহাজ, ১৫০টি যুদ্ধবিমান এবং দশ হাজার সাজোয়া যান। জল এবং স্থল পথে প্রতিপক্ষের হামলা মোকাবিলা এবং বিভিন্ন রণকৌশল প্রদর্শিত হচ্ছে মহড়ায়।
ন্যাটো একে অনুশীলনের ক্ষেত্র বললেও রাশিয়া এ মহড়াকে উস্কানি হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। মস্কোর অভিযোগ, ১৯৮৭ সালের ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তি আইএনএফ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর, রাশিয়া বিরোধী মনোভাব থেকেই সীমান্তবর্তী এলাকায় ন্যাটো জোট যুদ্ধের মহড়া চালাচ্ছে।
পরমাণু শক্তিধর দেশ দুটির মধ্যকার চরম উত্তেজনার পরিপ্রেক্ষিতে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন নেতা মিখাইল গর্ভাচেভ সতর্ক করে বলেছেন, রাশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধে জড়ালে কোনো পক্ষই জয়ী হতে পারবে না।

পঞ্চগড়ে নিষিদ্ধ ইজি বাইকের কারণে ১০ বাসযাত্রী নিহত

পঞ্চগড় সদর উপজেলার পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কে নিষিদ্ধ ইজি বাইককে পাশ কাটাতে গিয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় একটি বাসের ১০ যাত্রী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো অন্তত ২০ জন। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার দশমাইল এলাকায় বিদ্যুতের খুঁটিবাহী একটি ট্রাক ও যাত্রীবাহী একটি বাসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ, পাবনার চাটমোহর ও বাগেরহাটের মোল্লারহাটে আরো তিন মহাসড়কে তিন চাকার যানের কারণে সংঘটিত দুর্ঘটনায় মারা গেছেন আরো চারজন। আর রাজধানীর খিলগাঁও এবং সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় মারা গেছেন দুই মোটরসাইকেল আরোহী। বৃহস্পতিবার রাত থেকে গতকাল রাত পর্যন্ত এসব দুর্ঘটনায় মোট ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর বাইরে রাজধানীর খিলক্ষেতে ট্রেনে কাটা পড়ে মারা গেছেন অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি।  আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ : পঞ্চগড় : পঞ্চগড় সদর উপজেলার দশমাইল নামক স্থানে পঞ্চগড়-বাংলাবান্দা মহাসড়কে গত রাত সাড়ে ৮টার দিকে ভয়ংকর সড়ক দুর্ঘটনাটি ঘটে। মহাসড়কে নিষিদ্ধ ইজি বাইককে পাশ কাটাতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকজন জানায়, এ মহাসড়কে নিয়মিতভাবেই ইজি বাইকসহ তিন চাকার যানবাহন চলাচল করে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, তেঁতুলিয়ার ভেজনপুন থেকে বিদ্যুতের খুঁটিবাহী জেমকন লিমিটেডের একটি বড় ট্রাক পঞ্চগড়ের দিকে আসছিল। একই সময় তেঁতুলিয়ার দিকে যাচ্ছিল যাত্রীবাহী একটি বাস। রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিপরীতমুখী গাড়ি দুটি দশমাইল নামক স্থানে এলে একটি ইজি বাইককে পাশ কাটাতে যায় বিদ্যুতের খুঁটিবাহী ট্রাকটি। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা যাত্রীবাহী বাসটির সঙ্গে ট্রাকটির মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই বাসের পাঁচ যাত্রী নিহত হয়। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় সদর হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা আরো চারজনকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ছাড়া গুরুতর অবস্থায় কয়েকজনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, ২০ জনের অধিক যাত্রী আহত হয়। তাত্ক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানা যায়নি। তবে হতাহতদের বেশির ভাগেইর বাড়ি পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায়। আহতদের কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে পঞ্চগড় সদর হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।
নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কোশাব এলাকায় এশিয়ান হাইওয়ে (বাইপাস) সড়কে বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে মালবোঝাই একটি ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে একটি রিকশার ওপর পড়ে যায়। এতে রিকশাটির আরোহী উপজেলার নরাবো টেকপাড়া এলাকার চাঁন মিয়ার ছেলে রিকশাচালক রিপন (৩২) এবং মোস্তফা মিয়ার স্ত্রী হামিদা বেগম (৪৩) মারা যান। এ সময় আরো দুজন আহত হয়। এ সময় উত্তেজিত জনতা যানবাহন ভাঙচুর করে।
চাটমোহর (পাবনা) : পাবনার চাটমোহরে ট্রাকের ধাক্কায় ছিটকে পড়ে নজরুল ইসলাম (৩০) নামের এক ভ্যানচালকের মৃত্যু হয়। গতকাল বিকেল ৩টার দিকে পাবনা-চাটমোহর মহাসড়কের মূলগ্রাম শিমুলতলা বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত নজরুল উপজেলার ডিবিগ্রাম ইউনিয়নের আনকুটিয়া গ্রামের আহাম্মদ আলির ছেলে।
ফকিরহাট-মোল্লারহাট (বাগেরহাট) : বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার মহাসড়কে নিষিদ্ধ ইজি বাইকের সঙ্গে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে সঞ্জয় চক্রবর্তী (৩০) নামের এক যুবক নিহত হন।  বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় খুলনা-বাগেরহাট পুরাতন সড়কে এ ঘটনা ঘটে। সঞ্জয় ফকিরহাটের নলধা-মৌভোগ ইউনিয়নের দোহাজারী গ্রামের সুরেষ চক্রবর্তীর ছেলে।
হাওরাঞ্চল : সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় নিহত ইদ্রিস মিয়া (৩৫) মোটরসাইকেল আরোহী। এ সময় নূরুল আমীন (৪০) নামের অন্য এক মোটরসাইকেল আরোহী গুরুতর আহত হন। তাঁদের মোটরসাইকেলটি ধর্মপাশা-মধ্যনগর সড়কের বাদশাগঞ্জ বাজারসংলগ্ন স্থানে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ইদ্রিস উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের বেখইজুড়া গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে।
রাজধানী : রাজধানীর খিলগাঁও ফ্লাইওভারের ঢালে বেপরোয়া গাড়ির ধাক্কায় মোহাম্মদ মাসুদ (৩০) নামের এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন। এ ঘটনায় মোটরসাইকেলে থাকা ফয়সাল (২৩) নামের আরেক যুবক আহত হন। এ ছাড়া খিলক্ষেত এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি নিহত হন। তাঁর বয়স আনুমানিক ৪০ বছর। গতকাল ভোরের দিকে এ দুই দুর্ঘটনা ঘটে। 
সবুজবাগ থাসার ওসি আব্দুল কুদ্দুস ফকির বলেন, ভোরে অজ্ঞাত এক গাড়ির ধাক্কায় গুরুতর আহত হন মোটরসাইকেল আরোহী মাসুদ ও ফয়সাল। হাসপাতালে পাঠানোর পর মাসুদকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। তাঁরা দুজনই বাজাজ মোটরসাইকেল ওর্য়াকশপের কর্মচারী।
ঢাকা রেলওয়ে থানা পুলিশ জানায়, ভোরে খিলক্ষেত এলাকায় ট্রেনের নিচে কাটা পড়েন অজ্ঞাতপরিচয় ওই ব্যক্তি। তাঁর পরনে ছিল গেঞ্জি ও চেক লুঙ্গি।

রুশ সীমান্তে ন্যাটোর ভয়ঙ্কর মহড়ায় যা থাকছে


রাশিয়া সীমান্তের কাছে নরওয়েতে সামরিক মহড়া শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটো। স্নায়ুযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে এটিই ন্যাটোর সবচেয়ে বড় মহড়া বলে আখ্যায়িত করেছেন বিশ্লেষকরা।  ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় বাল্টিক সমুদ্র থেকে আইসল্যান্ড পর্যন্ত বিস্তৃত ‘ট্রাইডেন্ট জাঙ্কচার’ নামের এ মহড়া ৭ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে।
ন্যাটোর এই ভয়ঙ্কর মহড়ায় থাকছে একত্রিশটি দেশের প্রায় ৫০ হাজার সৈন্য, ১০ হাজার সামরিক যান ও ২৫০ যুদ্ধবিমান।
এদিকে, রাশিয়াও গত মাসে স্নায়ুয্দ্ধু পরবর্তী সবচেয়ে বড় মহড়া করেছিল। তিন লাখ সৈন্যের ওই ‘ভোস্তক-২০১৮’ মহড়ায় ছিল চীন ও মঙ্গোলিয়ার সেনাও। সৈন্য ছাড়াও ছিল ৩৬ হাজার ট্যাঙ্ক ও সাঁজোয়া যান, ৮০ টি যুদ্ধজাহাজ, হাজারের ওপর জঙ্গিবিমান। 
ওই মহড়ার পাল্টায় ইউরোপে ন্যাটো এ বড় যুদ্ধমহড়া করছে বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের। মহড়ার শুরুতে মহড়ার নেতৃত্ব দেওয়া মার্কিন অ্যাডমিরাল জেমস ফগো বলেন, আমরা এখন এখানে, উত্তরে, আমাদের সক্ষমতা প্রদর্শনে।
শুরুর দিকে মহড়ায় ৩৫ হাজার সেনার অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও পরে এর সঙ্গে আরও সৈন্য ও মার্কিন বিমানবাহী রণতরী হ্যারি এস ট্রুম্যানকে জুড়ে দেওয়া হয়। মহড়ায় যোগ দিতে গত সপ্তাহে আর্কটিক অঞ্চলে প্রবেশ করে হ্যারি এস ট্রুম্যান, সোভিয়েত পতনের পর এবারই এ পথে কোনো মার্কিন বিমানবাহী রণতরী এলো।

ওবামা-হিলারির বাড়ির ঠিকানায় ও সিএনএন অফিসে ‘বিস্ফোরক


দুইটি বাক্স এসেছিল পোস্ট বাক্সে। একটির ওপরে লেখা সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ওয়াশিংটনের বাড়ির ঠিকানা। আর একটির ওপরে লেখা হিলারি ক্লিন্টনের নিউইয়র্কের বাড়ির ঠিকানা। বাক্স গুলি স্ক্যানিং করতেই দেখা যায় তার মধ্যে রয়েছে বিস্ফোরক। 
সঙ্গে সঙ্গে ডেকে পাঠানো হয় এফবিআইয়ের তদন্তকারীদের। তারা এসে বাক্স দুইটি নিয়ে যান। সেই সময় হিলারি ক্লিন্টন এবং বারাক ওবামা তাদের বাড়িতে ছিলেন কিনা সেসম্পর্কে নিশ্চিত কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে বিস্ফোরক বোঝাই বাক্স দুটি তাদের কাছে পৌঁছানোর আগেই সেটা চিহ্নিত করে নিষ্ক্রিয় করে ফেলে এফবিআইয়ের কর্মকর্তারা। 
এদিকে, আবার খবর পাওয়া গেছে, মার্কিন সংবাদ সংস্থা সিএনএন'এর নিউইয়র্কের অফিসে একই কায়দায় বোমাতঙ্ক ছড়িয়েছে। খালি করে দেওয়া হয়েছে গোটা অফিসে। ‌‌উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই যুক্তরাষ্ট্রের বিশিষ্ট দার্শনিক জর্জ সোরোসের বাড়িতে পৌঁছে ছিল এমনই একটি বিস্ফোরক বোঝাই চিঠি। সেটিও চিহ্নিত করে নিষ্ক্রিয় করা হয়।

দলের জন্য কিছু করতে পারলে খুশি লাগে সাইফউদ্দিনের


নিজেদের 'লাকি গ্রাউন্ডে' চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ৭ উইকেটের জয় দিয়ে সিরিজ ইতোমধ্যেই নিশ্চিত করে ফেলেছে বাংলাদেশ। বুধবারের এই ম্যাচে বাংলাদেশ দলের সবচেয়ে বড় টার্নিং পয়েন্ট ছিল শেষ পাঁচ ওভারে জিম্বাবুয়েকে কোনো চার-ছয় না দিয়ে মাত্র উনিশ রানে আটকে রেখে বড় স্কোর গড়তে না দেয়া। 
দলের এই অর্জনে বড় অবদান রেখেছেন টাইগার অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিন। জিম্বাবুয়ের তিন ব্যাটিং স্তম্ভ মাসাকাদজা, উইলিয়ামস, চিগম্বুরারকে সাজঘরে ফিরিয়েছেন তিনি। যার ফলাফল ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ হয়েছেন সাইফউদ্দিন। তাই ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সাইফউদ্দিনের এমন পারফরম্যান্স নিয়েই কথা উঠলো সবার আগে।
এই ম্যাচের পারফরমেন্সের মূল্যায়ন করতে গিয়ে সাইফউদ্দীন বলেন, ‘যেহেতু আমাকে বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে কাউন্ট করে আমার প্রথম স্কিল অবশ্যই বোলিং। বলে উইকেট পেলে বা ইকোনমি বল করলে ভালো লাগে। পাশাপাশি ব্যাটিংটা। চেষ্টা করি দুই বিভাগেই ভালো করার।’
প্রথম ম্যাচে ফিফটি, দ্বিতীয় ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ  তিন উইকেট শিকার- কেমন লাগছে? এমন প্রশ্নের উত্তর সাইফউদ্দিন জানান, 'দলের জন্য কিছু করতে পারলে খুশি লাগে!' ম্যাচসেরা হবার প্রসঙ্গে সাইফউদ্দিন জানান, ‘অভাবিত ছিল ম্যাচসেরা হওয়ার ব্যাপারটি। চেষ্টা ছিল টিমকে কিছু দেবো। পেরেছি এটাতেই আমি খুশি। ম্যান অব দ্য ম্যাচ নিয়ে ভাবনায় ছিলাম না। হঠাৎ যখন ঘোষণা করা হল ভীষণ অবাক হয়েছি।’
শেষ পাঁচ ওভারে কোনো চার-ছক্কা হজম না করা এবং ১৯ রান দেয়া প্রসঙ্গে সাইফউদ্দীন বলেন, ‘উইকেট অনেক ব্যাটিং ফ্রেন্ডলি। মাথায় ছিল ২৫০ এর আগে থামাব জিম্বাবুয়ানদের। মুস্তাফিজ খুব ভালো বোলিং করেছে। পাশাপাশি আরেক দিকেই সুনিয়ন্ত্রিত বোলিং দরকার ছিল। আমি ওই কাজটাই করেছি যাতে মুস্তাাফিজকে সাপোর্ট দেয়া যায়। ওভারে ৫, ৭ রান দিতে পারি এমন লক্ষ্য ছিল।’

সমুদ্রের গভীরে ড্রোন তৈরির উদ্যোগ যুক্তরাষ্ট্রের


সমুদ্রের গভীরে এবার ড্রোন তৈরির বিষয়ে চিন্তা শুরু করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যেভাবে সামরিক ক্ষেত্রে চীন ও রাশিয়া শক্তিশালী হয়ে উঠছে, তা ক্রমশ যুক্তরাষ্ট্রের কাছে চালেঞ্জ হয়ে উঠছে। আর সেই লক্ষ্যে চীন কিংবা রাশিয়ার হুমকি মোকাবিলায় এই ড্রোন তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে মার্কিন নৌবাহিনী।
মার্কিন বার্ড কলেজের সেন্টার ফর স্টাডি অব দ্যা ড্রোন’র সহ-পরিচালক আর্থার হোলান্ড মাইকেল দাবি করেছেন, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তেজনা বাড়ছে। দেশ দু’টির বিশাল নৌবাহিনী রয়েছে আর এ অবস্থায় নৌজগতে চালকহীন প্রযুক্তি ব্যবহারের আগ্রহও স্বাভাবিক ভাবেই বেড়ে চলেছে। 
আগামী ৩০ বছরের মধ্যে নৌড্রোন পুরো মাত্রায় ব্যবহারের উপযোগী হয়ে উঠবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, এ সব ড্রোন হবে নানা আকারের এবং নির্ভরযোগ্য। এ ছাড়া উচ্চমাত্রায় স্বয়ংক্রিয় হবে এ গুলো। এছাড়া ঝড় উঠলে কোন কোন নৌড্রোন বন্দরেই আটকা পড়ে যায়। এ সীমাবদ্ধতা দূর করে অদূর ভবিষ্যতে নৌড্রোন ব্যাপক তৎপরতা চালাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। 
আগামী অর্থ বছরে নৌড্রোন উন্নয়ন খাতে ৩১ কোটি ৯০ লাখ ডলার ব্যয় করার প্রস্তাব দিয়েছে মার্কিন নৌবাহিনী। পানির তলা থেকে শত্রু জাহাজ শনাক্ত এবং অনুসরণের কাজ এসব ড্রোন। আকাশের ড্রোন সহজে তথ্য প্রেরণ করতে পারে পানির তলের ড্রোনের তা পারে না। নৌড্রোনকে ব্যাপক হারে ব্যবহার করতে চাইলে এ ক্ষেত্রে আরো উন্নয়ন ঘটাতে হবে। 

দুই বছর অন্তর হবে 'বিশ্বকাপ ফুটবল'!


সাধারণ চার বছর অন্তর ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ ফুটবল অনুষ্ঠিত হয়। তবে এবার দুই বছর পর পরই এটা দেখতে পাবে ফুটবল বিশ্ব। এমনটাই গুঞ্জন চলছে। যদিও সেটা ছোট আকারে। তবে সেটা বিশ্বকাপের মর্যাদা পাবে। বিশ্বব্যাপী ফুটবলের প্রসার ঘটাতে শুরু থেকেই বেশ উদ্যোগী ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনো। দায়িত্ব নেওয়ার পর নিজের মুখেই সে কথা জানিয়েছিলেন তিনি। সেই ভাবনা থেকেই এবার ফুটবলের 'মিনি বিশ্বকাপ' চালু করার পরিকল্পনা করছেন তিনি। সেই সঙ্গে আর প্রতি বছর ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ না করে চার বছর অন্তর আরও বড় আকারে করার পরিকল্পনা বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থার।   
গত জুন মাসে রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রাক্কালে মস্কোয় আয়োজিত ফিফা কংগ্রেসের আলোচনায় উঠে আসেনি ইনফান্তিনোর প্রস্তাব। শুক্রবার থেকে রোয়ান্ডার কিগালিতে শুরু হতে চলা ফিফা-র রুলিং কাউন্সিলের বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে ফের আলোচনা হওয়ার জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে। বিশ্বকাপের আগে প্রতি বছর অনুষ্ঠিত হয় ফিফা কনফেডারেশনস কাপ। এবার থেকে তার পরিবর্তে আট দল নিয়ে 'মিনি বিশ্বকাপ' করার পরিকল্পনা ইনফান্তিনোর। ২০২১ সাল থেকে এই নতুন টুর্নামেন্ট শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। তবে চার বছর অন্তর নয়, প্রতি দুই বছর অন্তর অক্টোবর-নভেম্বর মাসে হবে আট দলের এই নতুন টুর্নামেন্ট।
পাশাপাশি ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ আর প্রতি বছর না করে চার বছর অন্তর করার প্রস্তাব রয়েছে ফিফা প্রেসিডেন্টের। সাতটি দল নয়, ২৪টি ক্লাব দল নিয়ে চার বছর অন্তর ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ করার পরিকল্পনা ফিফার বৈঠকে আলোচনায় উঠে আসতে পারে। রোয়ান্ডার বৈঠকে ফিফার ক্যালেন্ডারে নতুন টুর্নামেন্ট সংযোজনের প্রস্তাব সর্বজন গৃহীত হয় কিনা এখন সেটাই দেখার।  

বহুতল ভবন থেকে ঝাঁপ দিলেন জিৎ (ভিডিও)

বহুতল ভবন থেকে ঝাঁপ দিয়েছেন টালিগঞ্জের জনপ্রিয় অভিনেতা জিৎ। খবরটা ছড়িয়ে পড়তেই হৈ হৈ পড়ে যায়। সকলেরই প্রশ্ন খবরটা সত্যি নাকি? হ্যাঁ সত্যিই বটে, তবে সবটাই নেহাতই তাঁর আগামী বাংলা ছবি 'বাঘবন্দি খেলা' ছবির শ্যুটিংয়ের সৌজন্যে।
তবে জিৎ এই দুঃসাহসিক স্টান্টের ভিডিওটা দেখলে পিলে চমকে যাবে বৈকি। জিৎএর ছবি অ্যাকশন থাকবে সেটা নতুন কিছু নয়। তবে এধরণের স্টান্ট করতে আগে কোনও বাঙালি অভিনেতাকে দেখা গেছে বলে মনে তো পড়ে না। তবে ব্যাংককে তাঁর আগামী ছবি 'বাঘবন্দি খেলা'র শ্যুটিংয়ে এই ঝুঁকিটাই নিয়েছেন জিৎ। সুরিন্দর ফিল্মসের পক্ষ থেকে ভিডিওটি ইউটিউব এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা হয়েছে। 
যেখানে দেখা যাচ্ছে একটি বহুতলের ছাদ থেকে দৌড়ে আসছেন জিৎ। আর পরেই বিল্ডিং থেকে ঝাঁপ দিতে দেখা যায় তাঁকে। বহুতলের দেওয়াল বেয়ে ৯০ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে নেমে আসতে দেখা যায় তাঁকে। তবে একবার না এই দৃশ্যটি যাতে পারফেক্ট হয় সেকারণে প্রায় ৩ বার এই দৃশ্যটি শ্যুট করতে হয়েছে অভিনেতাকে। অভিনেতা নিজেই শ্যুটিংয়ের এই অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন ভিডিওতে।
সাধারণত এধরনের দৃশ্যের জন্য অভিনেতার স্টান্ট ম্যানের সাহায্য নেন, তবে এক্ষেত্রে এই দৃশ্যটি জিৎ নিজেই করেছেন বলে জানাচ্ছেন পরিচালক রাজা চন্দ।
 জানা যাচ্ছে 'বাঘবন্দি খেলা ছবিতে মোট তিনটি গল্প রয়েছে যেগুলি একে অপরের সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত'। ছবির প্রথম গল্প 'বাঘ'-এর জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে জিৎ, আর তাঁর বিপরীতে রয়েছেন সায়ন্তিকা। এই ছবিটির পরিচালনাও করছেন তিন পরিচালক। যার মধ্যে 'বাঘ'এর পরিচালনায় রয়েছে রাজা চন্দ। আর অন্য দুটি গল্প বন্দি, খেলার পরিচালনায় রয়েছেন সুজিত মণ্ডল ও হরনাথ চক্রবর্তী।
এই ছবির দ্বিতীয় গল্প বন্দী-তে দেখা যাবে সোহম ও শ্রাবন্তী জুটিতে। বেনারসে চলছে এই গল্পের বেশকিছু অংশের শ্যুটিং। প্রচণ্ড গরমে বেশ কষ্ট করেই তাঁদের শ্যুটিং করতে হচ্ছে বলে জানাচ্ছে শ্রাবন্তী।https://youtu.be/PVkkfp-DLJ4

তবে কী শেষের পথে 'সিআইডি'র ২১ বছরের যাত্রা?


দীর্ঘ ২১ বছরের যাত্রা। অবশেষে বন্ধ হতে চলেছে ভারতের জনপ্রিয় টেলিভিশন সিরিজ । পর্দায় আর দেখা যাবে না এসিপি প্রদ্যুমন, ইন্সপেক্টর অভিজিৎ ও দয়াকে।
সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে দয়া ওরফে দয়ানন্দ শেট্টি নিজেই একথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আগামী ২৭ তারিখ সিআইডির শেষ পর্ব দেখানো হবে। তারপর থেকেই বন্ধ হয়ে যাবে এই শো'টি।
এখন পর্যন্ত সিআইডির এপিসোড সংখ্যা ১,৫৪৬টি। ১৯৯৭ সালের ২৯ এপ্রিল যাত্রা শুরে এই টিভি শো'টি। তারপরেই প্রবল জনপ্রিয়তা পায় সিআইডি। অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রী এই টিভি শো'টিতে অভিনয় করলেও সিরিজটির মূল চরিত্র এসিপি প্রদ্যুমনের চরিত্রে শিবাজী সত্যম, ইন্সপেক্টর অভিজিতের চরিত্রে আদিত্য শ্রীবাস্তব, দয়ার চরিত্রে দয়ানন্দ শেট্টি বরাবরই রয়ে গেছেন।
সেই সাক্ষাৎকারে দয়ানন্দ জানিয়েছেন, ‘‘শেষ এপিসোডের শুটিং ৪-৫ দিন আগেই হয়ে গেছে। তখনই আমাদের বলা হয় এটাই শেষ এপিসোড। সত্যি খবরটা জানার পরে থেকে আমাদের খুবই খারাপ লাগছে। সিআইডি ২২ বছরে পা দিতে চলেছিল। চ্যানেলের কিছু অভ্যন্তরীণ সমস্যার জন্য সিআইডি বন্ধ হবে বলে জানানো হয়েছে।’’
দয়া বলেন,  ‘‘আমি আমার চরিত্রটিকে খুব মিস করব। আশা করি দর্শকদের এই কয়েক বছর আনন্দ দিতে পেরেছি। আমরা একটা গোটা পরিবারের মতো ছিলাম। আমরা এখানকার প্রত্যেককেই মিস করব।’’

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ


বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে আজ চট্টগ্রামে মাঠে নামবে টাইগাররা। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় দুপুর আড়াইটায়। সিরিজ হার এড়াতে জিম্বাবুয়ের এই ম্যাচে জয়ের কোনো বিকল্প নেই। অন্যদিকে, জিতলেই এক ম্যাচ রেখেই সিরিজ জয় নিশ্চিত মাশরাফি বাহিনীর। এমন একটা ম্যাচে তাই কোনো ঝুঁকি হয়তো নেবে না বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে মুস্তাফিজ ফিট থাকলে আজকের ম্যাচে পরিবর্তনের সম্ভাবনা ক্ষীণ। আর সেটা না হলে মুস্তাফিজের জায়গায় দলে ফিরতে পারেন রুবেল হোসেন।
এছাড়া অভিষেক ম্যাচে প্রথম ওয়ানডেতে 'ডাক' মারা বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান ফজলে মাহমুদ রাব্বি আজও খেলবেন এটা অনেকটা নিশ্চিত। কারণ তার ব্যাপারে মাশরাফির বলেছেন, একটা ম্যাচ দিয়ে সব বিচার করা ঠিক না। তার অবশ্যই আরেকটি সুযোগ পাওয়া উচিত। 
ফলে বিকল্প ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ভালো খেলায় লেট অর্ডার আরিফুল, আর রুবেল সুস্থ হওয়ায় বাঁ-হাতি পেসার আবু হায়দার রনির কারোরই আজকের ম্যাচে নামার সম্ভাবনা কম। তবে, সিরিজ জিতে গেলে পরের ম্যাচে একাদশে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন হতে পারে। সেক্ষেত্রে এই তিনজনই তৃতীয় ওয়ানডেতে খেলতে পারেন।
বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
১. লিটন কুমার দাস
২. ইমরুল কায়েস
৩. ফজলে মাহমুদ রাব্বি
৪. মুশফিকুর রহিম
৫. মোহাম্মদ মিথুন
৬. মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ
৭. মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন
৮. মেহেদি হাসান মিরাজ
৯. মাশরাফি বিন মর্তুজা
১০. মুস্তাফিজুর রহমান/ রুবেল হোসেন
১১. নাজমুল ইসলাম অপু

বিশ্বের দীর্ঘদেহী ব্যক্তি বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে




কক্সবাজারের জিন্নাত আলী শুধু দেশের নয়, বিশ্বেরও দীর্ঘদেহী মানুষ। আলোচনায় সেভাবে না আসায় এ রেকর্ড আজও তার ঘরে পৌঁছায়নি। শারীরিক দুর্বলতা আর হাঁটু ব্যথার কারণে গুরুতর অসুস্থ জিন্নাতকে এখন রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মাত্র ২২ বছর বয়সেই জিন্নাত আলীর উচ্চতা ৮ ফুট ৫ ইঞ্চি। কক্সবাজারের রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের দরিদ্র কৃষক পরিবারের এই ছেলেটি এখন ঠিকভাবে দাঁড়াতে পারে না সোজা হয়ে। তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে সে সেজো। অতি উচ্চতার কারণে শোয়া, বসা ও হাঁটাচলা করতে হয় ঘরেই। খাবার চাহিদাও তার বেশি। দরিদ্র বাবা-মা তাকে পর্যাপ্ত খাবার দিতে পারে না। অপুষ্টিসহ নানান জটিল রোগে আক্রান্ত সে। সোমবার তাকে ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হাসান ইমামের তত্ত্বাবধানে হাসপাতালের কেবিন ব্লকে ভর্তি করা হয়। এরপর সেখান থেকে গতকাল দুপুরে ডি বিল্ডিংয়ের এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগে স্থানান্তর করা হয়। তবে চিকিৎসকরা এখনো তার রোগ শনাক্ত করতে পারেননি বলে জানা গেছে। ৫ বছর আগে জিন্নাত আলীকে চিকিৎসা করানো হয়েছিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে। সে সময় তার রোগটিকে জাইগানটিজম বলে শনাক্ত করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, জাইগানটিজম একটি টিউমার সংক্রান্ত রোগ। শরীরের অভ্যন্তরে টিউমারের প্রভাবে অতিরিক্ত হরমোন নিঃসরণ হয়। ফলে শরীরের আকৃতি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে। সঠিক সময়ে চিকিৎসা করে আক্রান্ত স্থান থেকে টিউমারটি অপসারণ করতে পারলে মুক্তি পাওয়া সম্ভব এ রোগ থেকে। তখন বলা হয়েছিল, টিউমার অপসারণে অস্ত্রোপচার করতে ৫ লাখ টাকা লাগবে। টাকার অভাবে ব্যয়বহুল এ চিকিৎসা করাতে না পেরে ওই সময় হাসপাতাল থেকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। বর্তমানে জিন্নাতের শারীরিক অবস্থা অবনতির দিকে যাচ্ছে। জিন্নাত আলীর পায়ের আকারও একটু বড় এবং ফোলা। জিন্নাত আলী এ প্রতিবেদককে বলেন, আমার মাপের জুতা কোথাও পাওয়া যায় না। অর্ডার দিয়ে বানিয়ে নিতে হয়। না হলে খালি পায়ে হাঁটতে হয়। ডান পায়ের একটা ক্ষতস্থানে পচন ধরেছে। বাম পা-টা আবার ইঞ্চি দুয়েক খাটো। গ্রামের পথে হাঁটলে মানুষ আমার দিকে চেয়ে থাকে। জিন্নাত আলীর বড় ভাই ইলিয়াস আলী বলেন, জন্মের সময় ওজন একটু বেশি ছিল ওর। স্থানীয় একটা স্কুলে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পড়েছে। পড়ালেখা মনে রাখতে না পারায় স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায় তার। ওর বয়স যখন ৭-৮ তখন থেকেই ওর বাড়ন্ত শরীরকে অস্বাভাবিক মনে হতে থাকে। স্থানীয় চিকিৎসকদের দেখালেও কোনো রোগ বা অস্বাভাবিকতা আছে বলে জানাতে পারেননি। তার পেট ভরবে এমন খাবারও আমরা ঠিকমতো দিতে পারতাম না। আমার ভাইয়ের চলাফেরা করতে, গাড়িতে করে কোথাও নিয়ে যেতে সমস্যা হয়। উচ্চতার কারণে গাড়িতে বসানো যায় না। চিকিৎসার জন্য এক বছর আগে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে আবারও ঢাকায় নিয়ে চিকিৎসা করার পরামর্শ দেন তারা। পরে এলাকার ছেলেরা তার ছবি তুলে ফেসবুকে দিলে তা স্থানীয় এমপি সাইমুম সরওয়ার কমলের নজরে আসে। তিনিই তার চিকিৎসা ও ভরণপোষণের দায়িত্ব নেন। তার পরামর্শেই এই হাসপাতালে জিন্নাতকে ভর্তি করানো হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের অতিরিক্ত পরিচালক ডা. মো. নাজমুল করিম মানিক জানান, জিন্নাত কেবল মাত্র হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে রোগ নির্ণয় করা হবে এবং সে অনুযায়ী পরবর্তী চিকিৎসা চলবে।  জানা যায়, বিশ্বের দ্বিতীয় দীর্ঘদেহী মানুষ তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারার অধিবাসী সুলতান কোসেন। তার উচ্চতা ৮ ফুট ২ দশমিক ৮ ইঞ্চি। সেন্টিমিটারে মাপলে যা দাঁড়ায় ২৫১ সেন্টিমিটারে। ১৯৮২ সালে জন্মগ্রহণ করা এই ব্যক্তিকে ২০১১ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জীবিত ব্যক্তিদের মধ্যে সবচেয়ে লম্বা বলে স্বীকৃতি দিয়ে রেখেছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস। গত ২০ বছরে ৮ ফুটের বেশি স্বীকৃতি পাওয়া প্রথম ব্যক্তি হিসেবে তিনিই আছেন। সুলতানের আগে দীর্ঘতম জীবিত ব্যক্তির রেকর্ডের মালিক ছিলেন চায়নার জি সুন, তার উচ্চতা ছিল ৭ ফুট ৮.৯৫ ইঞ্চি বা ২৩৬.১ সেন্টিমিটার।

মহাকাশে যুক্তরাষ্ট্রের সব যুদ্ধাস্ত্র ধ্বংস করতে সক্ষম চীন


চীন তার ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি যেভাবে এগিয়ে নিচ্ছে তাতে দেশটি মহাকাশে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় সব কিছু ধ্বংস করে দিতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বয়ং মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা সংস্থার প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল ট্রে অবারিংয়ের৷ ওয়াশিংটনে হাডসন ইনস্টিটিউটে দেওয়া এক ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, চীনের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচীর কারণে মার্কিন গোয়েন্দা ও পর্যবেক্ষণ কর্মসূচি মারাত্মক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে চলেছে। চীন ২০০৭ সালেই উপগ্রহ বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার মাধ্যমে এটা প্রমাণ করেছে যে তারা মহাশূন্যে কৃত্রিম উপগ্রহগুলোকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করার ক্ষমতা রাখে। এখন তারা মহাশূন্যে যুক্তরাষ্ট্রের সব যুদ্ধাস্ত্র ধ্বংস করার সক্ষমতা অর্জন করে ফেলছে।
প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই চীন জাহাজ বিধ্বংসী মধ্যম পাল্লার ‘ডিএফ-টুয়েন্টি ওয়ান’ ক্ষেপণাস্ত্রটি জনসমক্ষে এনেছে৷ অত্যন্ত উন্নত ও জটিল প্রযুক্তির এই ক্ষেপনাস্ত্রটি যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ জাহাজগুলির সঙ্গে পাল্লা দিতে সক্ষম৷

নাসার পোস্ট করা যে ভিডিওতে মাতল নেটদুনিয়া!


বেশ কিছু ভাইরাল ভিডিও থাকে যেগুলি মনে দাগ কাটে৷  নাসার পোস্ট করা একটি ভিডিও সবার মনে সেরকমই দাগ কেটেছে৷ সম্প্রতি একটি রকেট লঞ্জ করে নাসা৷ যার কারণে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে লঞ্চ প্যাডটি৷ আর সেটিকেই ঠান্ডা করতে ৪,৫০,০০০ গ্যালন পানি ছাড়া হয়৷ আর সেই ভিডিওটি ধারণ করা হয় ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারে৷
ভিডিওটিকে নাসার অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে পোস্ট করা হয়৷ এখন পর্যন্ত প্রায় ৩.৯ লক্ষ ইউজার ভিডিওটি দেখেছেন৷ স্পেস এজেন্সি ভিডিওটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গে গোটা বিষয়টির বিশ্লেষণও করে৷ যেখানেই ৪,৫০,০০০ গ্যালন পানি ছাড়ার রহস্যভেদ করা হয়৷ সংস্থা জানাচ্ছে, ‘রকেট লঞ্চের পরবর্তী উত্তাপ নিয়ন্ত্রনের জন্যই সিস্টেমটিকে ব্যবহার করা হয়েছে৷’
সূত্রের খবর, ২০২০ সালের জুনে লঞ্জ করা হবে এক্সপ্লোরেশন মিশন-১৷ স্পেস লঞ্চ সিস্টেমের প্রথম ফ্লাইট হতে চলেছে এটি৷ যেটির উপর নাসা ১০ বছরের বেশি সময় ধরেই কাজ করে চলেছে৷ নাসা জানাচ্ছে, আগের পরীক্ষার উপর ভিত্তি করে লঞ্চ প্যাডে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে৷ যেটি লঞ্চ সিস্টেমের কার্যকারিতাকে অনেকাংশে বাড়াবে৷

ইমরান খানের সঙ্গে 'মস্তি' করতে চান গেইল!

ক্রিকেটের ক্ষুদ্র সংস্করণ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের ইউনিভার্সাল বস। তার ধারেকাছে আর কেউ নেই। ব্যাট হাতে চার-ছক্কা হাঁকাতে দেশ বিদেশ ঘুরে সারাবছর টি-টোয়েন্টি লিগে খেলে বেড়ান। বাংলাদেশের বিপিএল কিংবা ভারতের আইপিএলে একাধিক মারকাটারি ইনিংস রয়েছে তার। সেই গেইলের এই মুহূর্তে আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগ মাতিয়ে শিরোপা জিতেছেন। তবে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট নিয়ে একটা আফসোস আছে তার।
বিশ্বের বহু দেশে খেললেও সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তান বা আফগানিস্তানে ব্যাটিং ম্যাজিক দেখানো হয়নি। তাই ক্যারিয়ারের গোধূলিবেলায় একবার অন্তত আফগানিস্তান বা পাকিস্তানে মেগা ইনিংস হাঁকাতে চান গেইল। শুধু তাই নয়, পাকিস্তানে গেলে সাবেক ক্রিকেটারও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে ভালো মুহূর্ত কাটাতে চান হেনরি গেইল। গেইল বলেছেন পাকিস্তানে গেলে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের সঙ্গে মস্তি করতে চান তিনি।
আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগের ফাইনালে কাবুল জোয়ানেনের বিপক্ষে ৩৪ বলে ৫৪ রানের মারকাটারি ইনিংস খেলেন। গেইলের ব্যাটিং সাজানো ছিল চারটি চার ও  চারটি ছক্কা দিয়ে। ১৩৩ রান তাড়া করতে নেমে গেইলের ধুঁয়াধার ব্যাটিংয়ের সুবাদে ১১ বল বাকি থাকতে চার উইকেটে জয় ছিনিয়ে নেয় বালখ লেজেন্ডস। দলকে চ্যাম্পিয়ন করে অকপট গেইল বলেছেন, ইমরানের সঙ্গে আড্ডা সঙ্গে কোমড় দুলিয়ে নাচ, দুইয়েরই স্বাদ পেতে চান তিনি।
মজা করে গেইল বলেছেন, 'পাকিস্তানের যাওয়ার জন্য আমায় একটা প্রাইভেট জেট পাঠালেই আমি খুশি।' 
এর আগেও কিন্তু পাকিস্তানে ক্রিকেট খেলতে গিয়েছেন গেইল। সেটা অবশ্য এক যুগ আগের কথা। ২০০৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের হয়ে পাকিস্তান সফরে গিয়েছিলেন গেইল। অতীতের পাতায় না হেঁটে সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তানের মাটিতে ব্যাটিং বিস্ফোরণ দেখাতে চান, সেজন্যই পাকিস্তানে ম্যাচ খেলতে চাওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন তিনি। আর সেই ব্যাটিং বিস্ফোরণ যদি ইমরানের সামনে হয় তো কথাই নেই।

ব্যস্ত রাস্তায় বিমানের অবতরণ, স্তম্ভিত গাড়ি চালকরা! (ভিডিও)


ব্যস্ত সড়কে আপনি রাস্তায় গাড়ি চালাচ্ছেন। রীতিমতো ব্যস্ত সময়। এমন সময়েই আপনার গাড়ির পাশে সেই সড়কে একটি বিমান অবতরণ করলো। কেমন মনের অবস্থা হবে আপনার? সম্প্রতি মার্কিন মুলুকের ক্যালিফোর্নিয়ার ইন্টারস্টেট ৮ সান দিয়াগোতে ঘটল এই বিরল ঘটনা। 
জানা যাচ্ছে, কেরি ডেকার নামে এক নারী গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছিলেন সেই রাস্তা ধরে। এমন সময়ে তিনি দেখতে পান একটি বিমান নেমে আসছে পথে। কেরি ক্যামেরাবন্দি করেন সেই দৃশ্য। কেরি তার ছেলেকে নিয়ে যাচ্ছিলেন দাঁতের ডাক্তারের কাছে। পথে এমন ঘটনায় তিনি হতচকিত হয়ে যান। 
শুধু তিনিই নন, এমন ঘটনায় ভয় পেয়ে যান পথের অন্যান্য গাড়ি চালকরাও। কেরির তোলা ভিডিওয় চারপাশ থেকে চিৎকার শোনা যাচ্ছে তাদের। পরে কেরি তার তোলা ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করেন। সেই ভিডিও মুহূর্তে ভাইরাল হয়ে যায়। 
ক্যালিফোর্নিয়া হাইওয়ে পেট্রল সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১৯ অক্টোবর বেলা ১১:১৫ নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে। সেই বিমানের ইঞ্জিনে হঠাৎ গণ্ডগোল টের পান পাইলট। তাই প্লেনটিকে আপৎকালীন অবতরণের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। কাছেই বিমান বন্দর থাকা সত্ত্বেও কেন রাস্তায় নামতে হল এই প্রশ্নের উত্তরে পাইলট জানিয়েছেন, পরিস্থিতি তখন এমন যে, রাস্তায় না নেমে উপায়ান্তর ছিল না তার সামনে। এই ঘটনায় কোনও বিপদ ঘটেনি। কেউ আহতও হননি।    https://youtu.be/AaECQlSHfg0

মানববিহীন যুদ্ধকপ্টার আনল চীন


যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের পর এবার মানবহীন যুদ্ধ হেলিকপ্টার আনল চীন। বিদেশের বাজারে বিক্রির জন্য প্রথম এই মানববিহীন যুদ্ধ হেলিকপ্টার প্রকাশ্যে আনছে দেশটি৷ দেশের উত্তর-পূর্বের তাইজিং প্রদেশে অনুষ্ঠিত হওয়া চতুর্থ চায়না হেলিকপ্টার এক্সপোতে প্রথম প্রদর্শিত হল হেলিকপ্টার AV500W-কে৷ কপ্টারটি তৈরি করেছে অ্যাভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি কর্পস অফ চায়না৷
মানববিহীন যুদ্ধ কপ্টারটির দৈর্ঘ্য ৭.২ মিটার, ওজন ৪৫০ কিলোগ্রাম ও গতিবেগ ঘণ্টায় ১৭০ কিলোমিটার৷
চীনা সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, ১২০ কিলোগ্রাম ওজনের অস্ত্র ও মালপত্র বহনে সক্ষম এই কপ্টার৷ এর অন্যতম নির্মাণকর্তা জিয়াং তাইয়ু জানিয়েছেন, গত অগস্ট মাসে প্রথম পরীক্ষায় সফল হয়েছে এই কপ্টার৷ এমনকি যেকোন স্থান ও পরিবেশে ওঠা-নামা করতেও সক্ষম এটি৷ চলতি বছরের মধ্যে কপ্টারটির চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষ করতে চায় চীন৷ ২০১৮ থেকে শুরু হবে বিদেশে বিক্রি৷
বিশেষজ্ঞরা বলছে, আট কিলোগ্রাম ওজনের এয়ার-টু-গ্রাউন্ড মিসাইল বহনে সক্ষম এই কপ্টর৷ এতে রয়েছে ব়্যাডার হোমিং টেকনলগি৷ পাঁচ কিলোমিটার দূরে থাকা শত্রুকে নিমেষে আঘাত করতে পারবে এটি৷ এছাড়া রয়েছে বোম্বার মেশিন৷ চীনা মিডিয়া সূত্রের খবর, মধ্য-প্রাচ্যের যে সমস্ত দেশ সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছে মূলত তাদের কাছেই এই কপ্টার বিক্রি করতে চায় চীন৷

মৃত্যু ডেকে আনে এই বাদ্যযন্ত্রের সুর!


পরপর সাজানো পানি ভর্তি ওয়াইন গ্লাস। সেগুলো বাজিয়ে চলেছেন এক মিউজিসিয়ান। সামান্য ভুল আর সবকটি গ্লাসই পড়ে ভেঙে যাবে। লন্ডনে এক কনসার্টে গিয়ে ওয়াইন গ্লাস নিয়ে সুরের এই কেরামতি দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন আমেরিকার ষষ্ঠ প্রেসিডেন্ট বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন। যন্ত্র নিয়ে মশগুল থাকা বেঞ্জামিন ঠিক করলেন এমনই এক যন্ত্র বানাবেন।
গ্লাস আরমোনিকা বা গ্লাস হারমোনিকা। ৩৭টি ঘুরন্ত কাচের গ্লাস কতগুলো রডের উপর সাজানো। ১৭৬১ সালে সুরের এই মেকানিকাল ভার্সন তৈরি করেন ফ্রাঙ্কলিন। ইতালীয় শব্দ আরমোনিয়ার অর্থ হারমোনি। অনেকে তাই সুরযন্ত্রকে গ্লাস হারমোনিকাও বলেন। হারমোনিকার সুরে মেতে ওঠে গোটা বিশ্ব। আর তারপরই বেরিয়ে আসে তার ভয়াবহ রূপ।
যারা এই বাদ্যযন্ত্রের নিত্য শ্রোতা, তাদের মধ্যে নানা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে শুরু করে। নার্ভ, চোখ, মাথার অসহ্য যন্ত্রণার মতো নানা অসুখ তো বটেই, এমনকি মৃত্যুর খবরও পাওয়া যায়। গ্লাস হারমোনিকার নিত্যবাদকরা ও শ্রোতারা ঠিক এমনই অভিযোগ তুলতে শুরু করেন।
১৭৯৯ সালে চিকিৎসক অ্যান্টনি উইলিচ এই বাদ্যযন্ত্র নিষিদ্ধ করার দাবি জানান। তিনি জানান, মস্তিষ্কের বিশেষ অংশকে অতি সক্রিয় করে তোলে এর সুর। ঘুমভাব, হ্যালুসিনেশন, প্যারালিসিস এমনকি মৃত্যুর ঘটতে পারে বেশি শুনলে। বেশ কিছু মনস্তত্ত্ববিদ দাবি করেন, আত্মহত্যার মানসিকতা জাগিয়ে তোলে এই বাদ্যযন্ত্র।
১৮০৮ সালে ভিয়েনায় একটা কনসার্টে গ্লাস হারমোনিকায় নিজের তৈরি সুর বাজাতে গিয়ে মঞ্চেই মৃত্যু হয় মারিয়ানা কির্চজেসনার নামে এক মিউজিসিয়ানের। মারিয়ানা জন্মান্ধ ছিলেন। ছোট থেকে মিউজিকই ছিল তার সবকিছু।
তৎকালীন সমালোচকরা মারিয়ানার মৃত্যুর জন্য ফ্রাঙ্কলিনের গ্লাস হারমোনিকাকে দায়ী করতে শুরু করেন।
বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে এখনও কয়েকটি হারমোনিকা রয়েছে। বিখ্যাত কয়েক জন সুরকার তাদের অ্যালবামে কিছু ক্ষণের জন্য এই বাদ্যযন্ত্র বাজিয়েওছেন।
ফ্রাঙ্কলিনের প্রকৃত গ্লাস আরমোনিকা বর্তমানে ফিলাডেলফিয়ায় ফ্রাঙ্কলিন ইনস্টিটিউটে রয়েছে। তবে সেটা সত্যিই অসুস্থতা এবং মৃত্যুর জন্য দায়ী ছিল কি না তা এখনও অজানাই থেকে গেছে।

কোহলি-রোহিতের জোড়া সেঞ্চুরিতে সহজ জয় ভারতের


গুয়াহাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে প্রথম একদিনের ম্যাচে বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মার শতরানে বিধ্বস্ত ক্যারিবিয়ান শিবির। ৮ উইকেটে ম্যাচ জিতে নিল ভারত। ৪৭ বল বাকি থাকতেই প্রথম ম্যাচ জিতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে  এগিয়ে গেল বিরাট বাহিনী।
শিমরন হেটমায়েরের শতরান সঙ্গে ওপেনার কায়রন পাওয়েলের অর্ধশতরানে ভর করে ৮ উইকেট হারিয়ে ৩২২ রান তোলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এদিন টস জিতে অবশ্য প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। 
অভিষেক ম্যাচে বড় রান করতে পারলেন না ওপেনার হেমরাজ। ৯ রানে মোহম্মদ শামির বলে বোল্ড হলেন তিনি। কিন্তু কায়রন পাওয়েল এবং শাই হোপ জুটি টেনে তোলে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। পাওয়েল ৫১ এবং হোপ ৩২ রানে আউট হন। ক্যারিয়ারের ২০০ তম একদিনের ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখতে পারলেন না মার্লন স্যামুয়েলস। রানের খাতা না খুলেই সাজঘরে ফিরলেন তিনি। 
এরপর ক্যারিবিয়ান ব্যাটিংয়ের হাল ধরেন হেটমায়ের। তাকে যোগ্য সঙ্গত দেন অধিনায়ক জেসন হোল্ডার(৩৮) এবং রভম্যান পাওয়েল(২২)। ৭৮ বলে ঝোড়ো ১০৬ রানের ইনিংস খেলে আউট হন হেটমায়ের। ৬টি বাউন্ডারি ও ৬টি ওভার বাউন্ডারিতে সাজানো ছিল তার ইনিংস। শেষ দিকে দেবেন্দ্র বিশু (২২) এবং কেমার রোচের (২৬) ওয়েস্ট ইন্ডিজের রানকে ৩০০ রানের ওপরে নিয়ে যায়। ভারতের হয়ে যুজবেন্দ্র চাহাল ৩টি, রবীন্দ্র জাদেজা এবং মোহম্মদ শামি ২টি করে উইকেট নেন।
৩২৩ রানের টার্গেট নিয়ে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই শিখর ধাওয়ানের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ভারত। ৪ রানে সাজঘরে ফেরেন শিখর। এরপর ভারতীয় ব্যাটিংয়ে হাল ধরেন অধিনায়রক বিরাট কোহলি এবং রোহিত শর্মা। কয়ারিয়ারের ৩৬ তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি করেন বিরাট। ২১ টি বাউন্ডারি ও ২ টি ওভার বাউন্ডারিতে সাজানো ১০৭ বলে ১৪০ রানের ইনিংস কোহলির। 
শতরান করেন রোহিত শর্মাও। একদিনের ক্রিকেটে ২০ তম শতরানটি এদিন পূর্ণ করলেন রোহিত। কোহলি ১৪০ রান করে আউট হলেও আম্বাতি রায়ডুকে সঙ্গে নিয়ে রোহিত শর্মা ভারতকে জয়ের পথে এগিয়ে নিয়ে যান। ১১৭ বলে ১৫২ রানে অপরাজিত থাকেন রোহিত শর্মা। ১৫ টি বাউন্ডারি ও ৮ টি ওভার বাউন্ডারিতে সাজানো রোহিতন ইনিংস। ২২ রানে অপরাজিত থাকেন রায়ডু। এদিন ভারতের হয়ে একদিনের ক্রিকেটে অভিষেক হয় ঋষভ পন্থের। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে অভিষেক হল হেমরাজ ও থমাসের। 

'অনেক জ্বালাইসি বাচ্চু ভাই, আমার পরিবার কাঁদে আপনার জন্য'


নির্বিবাদী বাচ্চু ভাই
গেঞ্জাম প্রিয় আমি ...
আমি উনাকে বিরক্ত করতাম আর উনি...সারাক্ষণ বলতেন ... তুই গোস্বা করিস না, শুধু গান গা, আল্লাহ তোরে কণ্ঠ দিসেন, চুপ থাক, সবার সাথে মিলে চল, আর আমি সব শুনে পুরনো অভ্যাসেই ছিলাম, তিনি আমার পরিবারকে ভালবাসতেন।
অনেক জ্বালাইসি বাচ্চু ভাই, আমার পরিবার কাঁদে আপনার জন্য। আপনি ক্যাডেট পড়ুয়া রণ রুদ্র'র খবর নিতেন সর্বদাই। আপনার জন্য রণ রুদ্র মিতু'র মন ঘন মেঘে আচ্ছাদিত, আর আম্মাকে এতো ভালবাসা দিয়েছেন, উনার দোয়া আপনার জন্য আছেই...
আর আমি... জ্বালাবোই আপনাকে...
আপনি শিশুদেরও বাচ্চু ভাই।
ভাল থাকুন মহান আল্লাহ্‌র কাছে বাচ্চু ভাই... আমীন...

বিশ্বের যে কোন ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ভেদ করতে পারে রাশিয়া


দেশের সেনাবাহিনীর হাতে থাকা শক্তিশালী এবং অত্যাধুনিক পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের প্রশংসা করলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন, রাশিয়ার হাতে থাকা এই অস্ত্র বিশ্বের যে কোন ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ভেদ করতে পারে।
রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, ২০০২ সালের এন্টি-ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তি থেকে আমেরিকা সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় রাশিয়াকে এখন পরমাণু অস্ত্রের ক্ষমতা বাড়াতে হবে। তিনি বলেন, “যখন কোন এক পক্ষ চুক্তি থেকে একতরফা নিজেকে প্রত্যাহার করে নেয় এবং পরমাণু বিধ্বংসী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলার কথা বলে তখন অন্য পক্ষকেও একই রকমের ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হয় অথবা এমন উপায় বের করতে হয় যাতে এন্টি-ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ভেদ করা সম্ভব হয় এবং হামলার ক্ষমতাও বাড়াতে হয়।”
রুশ প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, “আমরা ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ভেদ করাসহ  ভূমিভিত্তিক আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র, কৌশলগত বোমারু বিমান ও সাবমেরিন থেকে নিক্ষেপযোগ্য ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র-এই তিন ধরনের পরমাণু ব্যবস্থাকে আরও আধুনিক করে তোলা হয়েছে। এই ব্যবস্থাগুলো আমেরিকার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার চেয়ে অনেক বেশি কার্যকর। এটা বাস্তব যে, আমরা এগুলি করছি এবং আমরা সফলও হচ্ছি।”
রুশ প্রেসিডেন্ট সুস্পষ্ট করে বলেন, মস্কো এবং ওয়াশিংটনের মধ্যেকার কথিত পরমাণু অস্ত্রের প্রতিযোগিতা তারাই শুরু করেছে। মার্কিন তৎপরতায় উদ্বেগ প্রকাশ করে পুতিন বলেন, মস্কো এখনও নতুন স্টার্ট চুক্তি ও অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তি মেনে চলতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তিনি জানান, আমেরিকা তার পরমাণু অস্ত্রের উন্নয়ন ঘটাচ্ছে এবং ইউরোপে পুরনো অস্ত্রের জায়গায় নতুন অস্ত্র মোতায়েন করছে।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সেতুর উদ্বোধন মঙ্গলবার


চীনে নির্মিত বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম সমুদ্র সেতু ‘হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাও ব্রিজ’ আগামী মঙ্গলবার উদ্বোধন করা হবে। শনিবার চীনের ম্যাকাও বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল(এসএআর) সরকারের বরাত দিয়ে একথা জানিয়েছে চীনা সরকার পরিচালিত সংবাদ সংস্থা সিনহুয়া। খবর সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট'র।
এসএআর সরকারের তথ্য ব্যুরো জানিয়েছে, চালু হলে সেতুটি ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা হবে। এই সেতু দিয়ে ম্যাকাও ও হংকংয়ের যাত্রী ও যানবাহনগুলো সরাসরি এক অঞ্চল থেকে আরেকটিতে যাওয়া আসা করতে পারবে। তবে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হবে বুধবার।
সেতুটি ব্যবহারের ক্ষেত্রে পর্যটকদের সুবিধার কথা চিন্তা করে ম্যাকাও ও ঝুহাইয়ের মধ্যে কাস্টমস ক্লিয়ারেন্সের জন্য একটি যৌথ তদারকি এবং একবারের ছাড়পত্র নীতি অনুসরণ করা হবে।
ব্যুরো’র মতে, পর্যটকদের জন্য দুই ধরনের সরকারি পরিবহন থাকবে। একটি নিয়মিত বাস সার্ভিস এবং আরেকটি শাটল সার্ভিস। এক চেকপয়েন্ট থেকে আরেক চেকপয়েন্টে যেতে-আসতে এই শাটল সার্ভিস ব্যবহার করতে পারবে পর্যটকরা।

পৃথিবীর ভয়ংকর গুহা হ্যাংসন ডুং!


বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে হাজারও পাহাড় পর্বতে ঢাকা নানা ধরনের গুহা। এর মধ্যে কিছু গুহা আকারে ছোট আবার কিছু আকারে অনেক বড়। এ বড় গুহা গুলো শুধু মাত্র আকারেই বড় নই এগুলো আবার সাংঘাতিক ও ভয়ংকর হয়ে থাকে। এদের মধ্যে সবচেয়ে বড় ও ভয়ংকর গুহার তালিকায় সবার শীর্ষে হ্যাংসন ডুং।
ভিয়েতনামের কোং বিন প্রদেশের বো টাচ জেলায় এই গুহা নেটওয়ার্কের অবস্থান। এটিকে আবার বিশ্বের সবচেয়ে বড় গুহা নেটওয়ার্ক বলা হয়ে থাকে। ১৯৯১ সালে গুহাটি আবিষ্কৃত হয়। গুহাটি প্রথম আবিষ্কার করেন সেখানের স্থানীয় এক ব্যক্তি, যার নাম হো-খানহ।
ব্রিটিশ গুহা গবেষণা সংগঠনের প্রধান হাওয়ার্ড ও ডেভ লেমবার্ট ১০-১৪ এপ্রিল ২০০৯ সালে বিশ্বের বৃহত্তম এই গুহা নেটওয়ার্কের আয়তন ও প্রশস্ততা পরিমাপ করতে সমীক্ষা শুরু করেন। কিন্তু তাদের পর্যবেক্ষণ একটি বড় ক্যালসাইট পাঁচিলের কারণে থেমে যায়। এ গুহার সবচেয়ে বড় কক্ষটির পরিমাপ ২০০ মিটার উচ্চ এবং ১৫০ মিটার চওড়া, যা মোট ৫.৬ কিলোমিটার। হ্যাংসন ডুং গুহাটি আবিষ্কারের ফলে পৃথিবীর সবচেয়ে বৃহৎ গুহা হিসেবে মালয়েশিয়ার ডির গুহার স্থান দখল করে নেয়। ভিয়েতনামের জাতীয় উদ্যান ফুং না কিং ব্যাংয়ের পাশেই হ্যাংসন ডুংয়ের অবস্থান। রহস্যময় গুহাটি প্রায় ১৫০টি গুহার সমন্বয়ে গঠিত। মজার ব্যাপার হল গবেষক দল গুহাটির আয়তন পরিমাপ করতে পারলেও এর শেষ খুঁজে বের করতে পারেননি। ২০০৯ সালে হাওয়ার্ড, রিমটি ফুং না কি ব্যাং ন্যাশনাল পার্ক থেকে এই গুহা আবিষ্কারের কাজ শুরু করেন।
আর এ গুহাটি বিপদজ্জনক হওয়ার কারণ হল, গবেষণা দল গুহা আবিষ্কারের সময় সম্মুখীন হন নানা বিপদ-আপদের। তারা গুহার মধ্যে পান বিষধর সাপ, বড় মাকড়সা, অদ্ভুত সব প্রাণী ও অজানা-অচেনা বৃক্ষরাজি। তারা গুহার মধ্যে দেখতে পান ছোট ছোট পানির ফোয়ারা। গুহার মধ্যে রয়েছে অনেক সুড়ঙ্গপথ, যেসব পথ দিয়ে অতি সহজেই ভিয়েতনামের এক প্রদেশ থেকে অন্য প্রদেশে যাতায়াত করা যায়।
গুহার মধ্যে পানির ফোয়ারা ছাড়াও রয়েছে একাধিক জঙ্গল। দূর থেকে দেখতে হ্যাংসন ডুংকে দোতলা বাসের মতো মনে হয়। যে কারণে হ্যাংসন ডুং অতি আকর্ষণীয় গুহা হিসেবে বিবেচিত। প্রথম দিকে এ গুহা এলাকার দিকে স্থানীয় লোকজন আসতে ভয় পেত, কারণ তারা এই গুহার তলদেশের নদী থেকে উচ্চস্বরে শব্দ শুনতে পেত। গুহাটি আবিষ্কারের পর এখনও এটি সাধারণ জনগণের জন্য উন্মুক্ত নয়। কারণ এই গুহাটি অত্যন্ত ভয়ানক। এখানে পৃথিবীর অন্যতম মারাত্মক সব জীবজন্তু ও পোকামাকড়ের আবাস।
ব্যতিক্রমর্ধী এ গুহাটি হ্যাংসন ডুং গুহার ভেতরটা আলাদা একটি জগত। যে সব ফটোগ্রাফার এ গুহার অভ্যন্তরে প্রবেশ করেছিলেন তারা জানিয়েছেন, গুহার ভেতরে থাকাকালে ভেবেছিলেন তারা পৃথিবী থেকে আলাদা কোনো স্থানে চলে এসেছেন। জার্মানির বিশিষ্ট ফটোগ্রাফার ক্যারিস্টেন ২০১০ সালে ছবি তোলার জন্য এ গুহার অভ্যন্তরে প্রবেশ করেন। তিনি গুহা থেকে বাইরে এসে বলেন, তিনি সেখানে দুই সপ্তাহ অবস্থান করেন, এ সময়ে তিনি সেখানে ঘুমানোর সময় স্লিপিং ব্যাগে ঘুমাতেন, তিনি সর্বদা ছবি তোলায় ব্যস্ত থাকতেন এবং ভাবতেন তিনি পৃথিবী থেকে আলাদা কোনো স্থানে চলে এসেছেন।

মিরপুরের ‘রহস্যময়ী’ উইকেট নিয়ে যা বললেন মাশরাফি


সফরকারী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আজ হোম অফ ক্রিকেট মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে মুখোমুখি হচ্ছে টাইগাররা। তবে শক্তির বিচারে পিছিয়ে থাকা জিম্বাবুয়েকে মোটেও হালকা ভাবে নিচ্ছেন না টিম বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর আড়াইটায়।
সিরিজের প্রথম ম্যাচ, বাংলাদেশ চাইছে সব ঠিকঠাকভাবেই মাঠে অনুবাদ করতে। তবে উইকেট নিয়ে একটা ভাবনা থাকছে বাংলাদেশ দলের। উইকেট বলতে মিরপুরের উইকেট। ‘রহস্যময়ী’ উইকেট হিসেবে যার পরিচিতি।
শনিবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে তাই মাশরাফিকেও চিন্তিত মনে হলো, ‘মিরপুরের উইকেট সম্পর্কে ভবিষ্যতবাণী করা খুবই কঠিন, আমরা সবাই সেটা জানি। মিরপুরের উইকেট ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন আচরণ শুরু করে। আগে থেকে বলা খুবই কঠিন হবে। তবে প্রত্যাশা তো অবশ্যই ভালো কিছু থাকবে।’
সেই ভালো উইকেট বলতে মাশরাফির চাওয়া, ‘সাধারণত ২৫০-২৬০ রান হলে ম্যাচ ভাল হয়, আগে ব্যাট করা দলের জেতার সুযোগ বেশি থাকে। শুরুতেই যে স্লো বা টার্ন হবে, এমন আশা অবশ্যই করছি না।’

মার্কিন ভিসা নীতিতে বড় পরিবর্তন!


ওবামা যুগের প্রাপকদের চাকরির অনুমোদন বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে ট্রাম্প প্রশাসন। এইচ-ওয়ান-বি ভিসা প্রাপক পেশাদারদের স্বামী বা স্ত্রী এইচ-ফোর ভিসা পেয়ে থাকেন। এদের বেশিরভাগই এশিয়ার।
যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিভাগের ধারণা, এই এইচ-ফোর ভিসার অবসান হলে সে দেশের নাগরিকদের চাকরির সুবিধা বাড়বে।
সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী প্রবাসীদের চাকরির সুবিধা প্রাপ্তির বিধি বাতিল করার পরিকল্পনা করেছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী ১০ হাজার প্রবাসী ট্রাম্প প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের প্রভাব পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। 
ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন বিভিন্ন দেশের ৭০ হাজার কর্মী। যদিও সরাসরি আমেরিকা থেকে এইচ-ফোর ভিসা তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা ঘোষণা করেনি ট্রাম্প সরকার।
সরকারিভাবে শুধু ঘোষণা হয়েছে, ভিসা নীতির পরিবর্তন হবে। কিন্তু যেহেতু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজে বারবার এই ভিসা নীতির বিরুদ্ধে কথা বলেছেন, সেহেতু এই নীতি বাতিল করা হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।
এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রে কর্মরত প্রবাসী কর্মীদের স্বামী এবং স্ত্রীদের ওই দেশের মাটিতে চাকরি বা কর্মসংস্থান অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। কমপক্ষে ভারতীয়সহ এই নীতির ফলে প্রত্যক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন কয়েক হাজার প্রবাসী। আশঙ্কা করা ২০১৬-তে ৪১ হাজারেরও বেশি এইচ-ফোর ভিসা দেওয়া হয়। 
২০১৭-এ ৫০ হাজারের কাছাকাছি সংখ্যায় ভিসা দেওয়া হয়। সম্প্রতি হোমল্যান্ড সিকিউরিটি দফতরের পক্ষে এইচ ওয়ান বি ভিসা নিয়ে কর্মরতদের স্বামী বা স্ত্রীদের কাজের জন্য দেওয়া এইচ-ফোর ভিসা বাতিল করার জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়। 
যুক্তরাষ্ট্রের শ্রম দফতর মনে করে, দেশের নাগরিকরা নতুন নিয়মে উপকৃত হবেন। প্রবাসীদের কাজ দেওয়া নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই তাদের মধ্যে অসন্তোষ জমা হয়েছিল।

আজ চট্টগ্রামে নেওয়া হচ্ছে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ

রাজধানীতে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন ও জানাজা শেষে আজ শনিবার চট্টগ্রামের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ।
সকাল ১০টায় উড়োজাহাজে করে স্বজনরা আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ নিয়ে চট্টগ্রামে রওয়ানা হওয়ার কথা রয়েছে। স্বজনদের মধ্যে আইয়ুব বাচ্চুর অস্ট্রেলিয়া ও কানাডা প্রবাসী দুই সন্তানও থাকার কথা রয়েছে।
বিকেলে মায়ের কবরের পাশে শায়িত করা হবে জনপ্রিয় এই সংগীত শিল্পীকে।
তার মরদেহ প্রথমে সড়কপথে নেয়ার কথা থাকলেও পরে ওই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয় বলে গণমাধ্যমকে জানান আইয়ুব বাচ্চুর ব্যান্ড এলআরবির ব্যবস্থাপক শামীম আহমেদ।
শুক্রবার তৃতীয় জানাজা শেষে ব্যান্ড সংগীতের এ কিংবদন্তির মরদেহ স্কয়ার হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়।
এর আগে আইয়ুব বাচ্চুকে শেষবারের মতো একনজর দেখতে, শ্রদ্ধা জানাতে ঢল নেমেছিল সর্বস্তরের মানুষের। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় যখন শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ নিয়ে আসা হয় শহীদ মিনারে, তখন চারদিক ছিল লোকে-লোকারণ্য। তাদের কারো হাতে ফুল, কারো চোখে জল। সবার চোখে-মুখে বিষাদের ছায়া; সঙ্গে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার ছোঁয়া। শ্রদ্ধা নিবেদনের এ আয়োজনে যেমন ছিল আইয়ুব বাচ্চুর অসংখ্য ভক্ত, অনুরাগী; তেমনি ছিলেন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারাও। সর্বস্তরের মানুষের ফুলেল শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সিক্ত হলেন শিল্পী।
শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দুপুর ১টার দিকে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় হাইকোর্টসংলগ্ন জাতীয় ঈদগাহ মাঠে। সেখানে বাদ জুমা তাঁর প্রথম জানাজায় অংশ নেয় হাজারো মানুষ। পরে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় মগবাজারে তাঁর নিজের স্টুডিও এবি কিচেনে। আইয়ুব বাচ্চুর দ্বিতীয় জানাজা হয় চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে। সেখানেও শিল্পী, শুভার্থী ও সহকর্মীরা শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বাদ আসর তৃতীয় জানাজা পড়ানো হয়। এরপর স্কয়ার হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয় শিল্পীর মরদেহ। আজ শনিবার ভোরে তাঁর দুই ছেলেমেয়ের ঢাকায় পৌঁছার কথা রয়েছে। তাঁরা আসার পর চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ। সেখানে চতুর্থ জানাজা শেষে এনায়েত বাজারে পারিবারিক কবরস্থানে মায়ের কবরের পাশে তাঁকে সমাহিত করা হবে।
অগণিত ভক্ত-অনুরাগীকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে গত বৃহস্পতিবার সকালে আইয়ুব বাচ্চু মাত্র ৫৬ বছর বয়েসে পাড়ি জমান পরপারে। রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়ার পথে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ব্যান্ড দল এলআরবির লিড গিটারিস্ট ও ভোকালিস্ট আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন একাধারে গীতিকার, সুরকার ও প্লেব্যাক শিল্পী।
গতকাল হেমন্তের রৌদ্রকরোজ্জ্বল সকালে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত হয় শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন আয়োজন। এই শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় আইয়ুব বাচ্চুর কফিন ঘিরে ছিলেন তাঁর সহযাত্রীরা। তাঁদের মধ্যে ছিলেন তপন চৌধুরী, সাফিন আহমেদ, মানাম আহমেদ, কুমার বিশ্বজিৎ, রবি চৌধুরী, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, আইয়ুব বাচ্চুর ছোট ভাই ইরফান চৌধুরী প্রমুখ। এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব।
স্কয়ার হাসপাতালের হিমাগার থেকে সকাল ১০টা ২৫ মিনিটে কিংবদন্তি সংগীতশিল্পীর মরদেহ শহীদ মিনারে পৌঁছানোর অনেক আগে থেকে সেখানে নামে গণমানুষের ঢল। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সেই ঢল পরিণত হয় মানুষের স্রোতে। সুশৃঙ্খলভাবে নিবেদন করা ভক্তদের ভালোবাসার ফুলে আর শোকের অশ্রুতে ছেয়ে যায় শিল্পীর কফিন। শ্রদ্ধা নিবেদন পর্বে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের, সংগীতাঙ্গনের দিকপালরা যেমন এসেছিলেন, তাঁদের ছাপিয়ে ঢল নেমেছিল সাধারণ মানুষের। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বর ছাড়িয়ে জনস্রোত সম্প্রসারিত হয় আশপাশের সড়কে। দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে ভক্ত-সাধারণ প্রিয় শিল্পীর কফিনে ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করে।
শ্রদ্ধা জানাতে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, শিল্পী সুমনা হক, শিল্পী ফোয়াদ নাসের বাবুসহ অগণিত ভক্ত-অনুরাগী। নারায়ণগঞ্জ থেকে এসেছিলেন শিল্পীর ভক্ত তানভীর হাসান। ২০ বছরের এই তরুণ ফুল হাতে দাঁড়িয়েছিলেন শহীদ মিনারে। দীর্ঘ লাইন আর ভিড় ঠেলে প্রবেশ করতে পারছিলেন না তিনি। শিল্পীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আইয়ুব বাচ্চুর গান আমার ভেতরে যে শান্তি ও আনন্দ দিয়েছে, তার কোনো তুলনা নেই।’ তানভীরের মতো সহস্র মানুষ এসেছিল প্রিয় শিল্পীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে।
শহীদ মিনারে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব। আইয়ুব বাচ্চুকে একে একে শ্রদ্ধা জানায় আওয়ামী লীগ, কমিউনিস্ট পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ (ইনু), বাসদ, কৃষক লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, ছাত্রলীগ (জাসদ), ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্রমৈত্রী, যুবমৈত্রী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, সিলেট সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, টেলিভিশন নাট্যকার সংঘ, গণগ্রন্থাগার অধিদপ্তর, বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ড অ্যাসোসিয়েশন (বামবা), স্থপতি ’৭১, ফেসবুক গ্রুপ ‘দুষ্টু ছেলের দল’, মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিজ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ, চট্টগ্রাম সমিতি ঢাকা, পটিয়া সমিতি ঢাকা, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সংগীত পরিষদ, সমস্বর, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ, একতা কালচারাল সোসাইটি, উদীচী, পথনাটক পরিষদ, প্রাচ্যনাট, বৌদ্ধ সাংস্কৃতিক পরিষদ, যুব সংহতি, ব্যান্ড দল ‘কিংবদন্তী’, মিউজিশিয়ান্স ফাউন্ডেশন, কুমিল্লার কাগজ, স্রোত আবৃত্তি সংসদ, ছাত্রলীগ-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা প্রমুখ।
এ ছাড়া আইয়ুব বাচ্চুর কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, কালের কণ্ঠ সম্পাদক ও কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য শিরীন আখতার, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক, ফকির আলমগীর, আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য মুহাম্মদ সামাদ, ম. হামিদ, নাট্যজন ইনামুল হক, সাংবাদিক মোজাম্মেল বাবু, শংকর সাঁওজাল, সাংবাদিক মুন্নী সাহা, রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী অনিমা রায়, ফিডব্যাকের ফোয়াদ নাসের বাবু, শিল্পী সুমনা হক, অর্থহীন ব্যান্ডের লিড ভোকাল সুমন, অবসকিউরের সাইদ হাসান টিপু, তানযীর তুহিনসহ অসংখ্য মানুষ।
আইয়ুব বাচ্চুর সহশিল্পীসহ সংগীত ও সংস্কৃতি জগতের বিভিন্নজনের কথায় তরুণ প্রজন্মকে উজ্জীবিত করার ক্ষেত্রে তাঁর অবদানের কথা ফুটে ওঠে। আওয়ামী লীগের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ব্যান্ড সংগীতে তিনি নতুন মাত্রা যোগ করেছেন। এ কারণে তিনি সবার ভালোবাসা পেয়েছেন। শিল্পী হিসেবে তিনি পরিণত হয়েছেন এ দেশের সম্পদে। তাঁর চলে যাওয়া একেবারেই আকস্মিক। সংগীত ভুবনে তিনি শূন্যতা রেখে বিদায় নিলেন। আমার বিশ্বাস, নতুন প্রজন্ম তাঁর দেখানো পথে চলে নবচেতনায় উজ্জীবিত হবে।’
কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন বলেন, এই দেশে আইয়ুব বাচ্চুর কোটি কোটি ভক্ত রয়েছে। তাঁর গিটারের সুরে মুগ্ধ হয়েছে অগণিত শ্রোতা। যে গানগুলো তিনি রেখে গেছেন সেসব গান এ দেশের চিরকালের সম্পদ হয়ে থাকবে। প্রজন্মের পর প্রজন্ম শুনবে সেই গান।
মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক বলেন, সংগীতে তিনি নতুন প্রাণের সঞ্চার করেছেন। গানের মাধ্যমে কষ্ট, বেদনাসহ জীবনের নানা অনুভূতি প্রকাশ করেছেন। তাঁর গিটারের সুরে উচ্ছ্বসিত হয়েছে লাখো স্রোতা। জীবনভর মগ্ন থাকতেন সংগীত সাধনায়। নতুন প্রজন্ম বয়ে নিয়ে যাবে তাঁর এই সুরের সাধনাকে।
নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, শিল্পী হিসেবে আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনার তরুণ প্রতিনিধি। এই শিল্পী সংগীতে নতুন ভাষা দিয়েছেন। আগামী প্রজন্ম তাঁর সংগীত ধারাকে অনুসরণ করবে। সুরের আশ্রয়ে তিনি জাতীয় ঐক্য গড়েছেন। তাঁর এই মৃত্যু আমাদের ঐক্যবদ্ধ করেছে এবং শক্তি দিয়েছে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ফুল নিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে উপ-উপাচার্য কবি মুহাম্মদ সামাদ বলেন, সংগীতের যে নতুন ধারা ব্যান্ডসংগীত সেখানে আইয়ুব বাচ্চু উজ্জ্বল নক্ষত্র। তাঁর সংগীত গণমানুষের সঙ্গে সম্পৃক্ত, মানুষের জন্য তিনি গান গেয়েছেন। আমি যতটুকু জানি কনসার্ট শেষ করার আগে তিনি বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত গাইতেন। এ থেকেই বোঝা যায় দেশের প্রতি, মানুষের প্রতি, মুক্তিযুদ্ধের প্রতি তাঁর ভালোবাসা ছিল অগাধ।
শিল্পী তপন চৌধুরী বলেন, এই শহীদ মিনারে এত মানুষ ভালোবাসা জানাতে এসেছে—এটাই একজন শিল্পীর জীবনে অনেক বড় প্রাপ্তি।
শিল্পী ফোয়াদ নাসের বাবু বলেন, গানের জন্য তাঁর পরিশ্রম, সাধনা ও ফ্যাশন ছিল সার্বক্ষণিক। তিনি নিজেই একটি প্রতিষ্ঠান ছিলেন। ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে একজন আইয়ুব বাচ্চু। গিটারের অবিরাম সুরের মূর্ছনায় আইয়ুব বাচ্চু ভক্তদের মাতিয়ে তুলতেন। তাঁর গিটার বাজানো শুনে দেশের হাজার হাজার তরুণ গিটার বাজাতে উদ্বুদ্ধ হয়েছে, গিটার বাজানো শিখেছে।
শিল্পী ফকির আলমগীর বলেন, আইয়ুব বাচ্চু এমন একটা সময়ের শিল্পী, যে সময় সংগীতে একটা খরা চলছিল। এ শিল্পী তা দূর করেছেন।
শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দুপুরে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ আনা হয়। শিল্পীর প্রথম জানাজায় শিল্পী, নাট্যকার, রাজনীতিবিদ, আইনজীবীসহ সর্বস্তরের হাজারো মানুষ অংশ নেয়।
জানাজায় আইয়ুব বাচ্চুর ছোট ভাই এরফান চৌধুরী বলেন, আইয়ুব বাচ্চু সব সময় মানুষকে সাহায্য করতেন। সাধারণ মানুষকে তিনি ভালোবাসতেন। পরিবারের প্রতি তাঁর অগাধ ভালোবাসা ছিল। সবাই আমার ভাইয়ের জন্য দোয়া করবেন।
গতকাল আইয়ুব বাচ্চুর জানাজা পড়ান হাইকোর্ট মসজিদের ইমাম আবু সালেহ সাইফুল্লাহ।