Hot!

ভালো বসের বৈশিষ্ট্য

সহমর্মিতা
এটা খুব ছোট অথচ উজ্জ্বল একটি গুণ। সবারই কমবেশি থাকে; সবাই দেখায়। কিন্তু যখন একজন বস অর্থাৎ অফিসের সবচেয়ে বড় কর্তা তা দেখায়, তখন তা কর্মীদের জন্য অন্য রকম একটি বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। সহমর্মিতা দেখাতে অর্থও লাগে না; লাগে একটা মানসিকতা।
সামনে থাকা
এটা বস-সুলভ আচরণের অন্যতম এক বৈশিষ্ট্য। কর্মীদের যেকোনো প্রয়োজনে সবার সামনে গিয়ে দাঁড়াতে হবে। এতে কর্মীরা তার ওপর নির্ভর হতে শিখবে। মনে রাখ দরকার, এটা একটা বিশেষ নেতৃত্বগুণ।
পার্থক্য ধরা
কর্মীরা ভুল করবে। কিন্তু ভালো বস উত্তেজিত হয় না কিংবা কর্মীদের বকাঝকাও করে না। এ ক্ষেত্রে তিনি ভুলগুলো শুধরে দেন। এরপর ধরিয়ে দেন ভুল আর সঠিকের পার্থক্য। এতে কর্মীরা সহজেই ভুল থেকে বেরিয়ে আসতে পারে।
বিনয়
একজন ভালো বসের জন্য বিনয়ী হওয়াটা খুবই জরুরি। বিনয় শুধু একটা গুণই নয়, এটা কর্মক্ষেত্রের নানা জটিলতা থেকেও বসকে রক্ষা করে। আর একটি বিষয়, বিনয়ী হওয়া মানে ছোট হওয়া নয়। বিনয় একটি উচ্চমার্গীয় একটি গুণ।
লক্ষ্য পরিষ্কার
বস কর্মীদের কাছে কী চান, তা পরিষ্কার করতে হবে। চাহিদা আর কর্মীদের জোগানের মধ্যে সমন্বয় করাটা জরুরি।
দূরদৃষ্টি
এটা এমন একটা গুণ, যা না থাকলে যেকোনো বসকে বিপদে পড়তে হবে। ভালো বস হতে হলে এটা লাগবেই। মনে রাখতে হবে, বসের একটি সিদ্ধান্তের ওপর অনেকের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে।