নিউজ

দুই লাখ টাকা জরিমানা কুলাউড়ায় চা–বাগানে টিলা কেটে রাস্তা বানানোয়


মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার লুয়াইউনি-হলিছড়া চা–বাগানে পরিবেশ আইন লঙ্ঘন করে টিলা কেটে রাস্তা তৈরির দায়ে বাগানের উপব্যবস্থাপককে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। গতকাল রোববার পরিবেশ অধিদপ্তরের সিলেটের বিভাগীয় কার্যালয়ে শুনানি শেষে এ জরিমানা করা হয়।


অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, লুয়াইউনি-হলিছড়া বাগানটি উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নে পড়েছে। বাগানে সম্প্রতি খননযন্ত্র দিয়ে একটি উঁচু টিলা কেটে মাটি ফেলে প্রায় ১৫০ ফুট দীর্ঘ ও প্রায় ১০ ফুট প্রস্থের একটি রাস্তা নির্মাণ করা হয়। খবর পেয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের মৌলভীবাজার কার্যালয়ের পরিদর্শক ফখর উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি দল ২৬ নভেম্বর সেখানে অভিযান চালায়। পরে এ বিষয়ে অধিদপ্তরের মৌলভীবাজার কার্যালয় থেকে প্রতিষ্ঠানের সিলেটের বিভাগীয় পরিচালকের কাছে একটি প্রতিবেদন পাঠানো হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক শুনানির দিন ধার্য করে হাজির হতে বাগানের উপব্যবস্থাপককে নোটিশ দেন।

গতকাল শুনানিতে হাজির হয়ে বাগানের উপব্যবস্থাপক মো. রবিউল ইসলাম অপরাধ স্বীকার করেন। এ অবস্থায় অধিদপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রথমে তাঁকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করেন। পরে করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসা-বাণিজ্যের খারাপ অবস্থার কারণে জরিমানার পরিমাণ কমিয়ে দুই লাখ টাকা ধার্য করা হয়। 


এ ছাড়া এক মাসের মধ্যে মাটিভরাট করে কাটা টিলাটি পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা, মাটিধস ঠেকাতে পাকা প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মাণ ও সেখানে পর্যাপ্ত বৃক্ষরোপণের নির্দেশ দেওয়া হয়। জরিমানার টাকা সাত কার্যদিবসের মধ্যে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে বলা হয়েছে।


পরিবেশ অধিদপ্তরের মৌলভীবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক বদরুল হুদা জরিমানার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তবে বক্তব্য জানতে একাধিকবার মুঠোফোনে কল করলেও বাগানের উপব্যবস্থাপক রবিউল ইসলাম ফোন ধরেননি।